Vision  ad on bangla Tribune

শ্যালিকাকে ধর্ষণ করে ভিডিও ইন্টারনেটে, ভগ্নিপতি গ্রেফতার

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি ০২:০১ , জুন ২০ , ২০১৭

নারায়ণগঞ্জের বন্দরে শ্যালিকাকে ধর্ষণের পর ভিডিও ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেওয়ার অভিযোগে ভগ্নিপতি মুরাদ মিয়াকে (৩২) গ্রেফতার করেছে পুলিশ। সোমবার সকালে উপজেলার কাজীপাড়া এলাকায় অভিযান চালিয়ে মুরাদকে গ্রেফতার করা হয়।
এই ঘটনায় ধর্ষণের শিকার শ্যালিকা বাদী হয়ে ধর্ষক ভগ্নিপতি মুরাদকে আসামি করে বন্দর থানায় তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইন এবং নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে দুটি মামলা দায়ের করেন।
জানা গেছে, ৭ বছর আগে বন্দর উপজেলার ঘারমোড়া কাজীপাড়া এলাকার বজলুর রহমানের ছেলে মুরাদ মিয়ার সঙ্গে কুমিল্লা জেলার দাউদকান্দী থানার পশ্চিম কাউয়াদী এলাকার ধর্ষণের শিকার কিশোরীর বড় বোনের বিয়ে হয়। পারিবারিক কলহের কারণে মুরাদের সঙ্গে তার স্ত্রীর ঝগড়া হলে গত এক মাস আগে ৫ বছরের সন্তান নিয়ে ওই কিশোরীর বড়বোন বাপের বাড়ি চলে যায়। গত ২৬ মে ভগ্নিপতি মুরাদ তার শ্যালিকাকে ফোন করে জানায় তার ছেলের জন্য ঈদের জামা-কাপড় কিনেছেন, সেগুলো যেন সে নিয়ে যায়।
শ্যালিকা ভগ্নিপতির কথায় বন্দর বাসস্ট্যান্ড এলাকায় এলে মুরাদ বন্দর উপজেলার কলাবাগ জনৈক সোবাহান ওরফে পরান বাবুর দোতালা ভবনের নিচতলায় ভাড়াটিয়া ফারুকের রুমে নিয়ে তাকে ধর্ষণ করে এবং ধর্ষণের ভিডিও চিত্র ধারণ করে তা ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেয়। পরে শ্যালিকাকে মুরাদ দু’দিন একটি ঘরে আটকে রাখে। গত ২৮ মে মুরাদ তার শ্যালিকাকে ভয় দেখিয়ে বিয়ে করে। পরে গত ১৫ জুন শ্যালিকা কৌশলে ওই বাড়ি থেকে পালিয়ে যায় এবং বিষয়টি তার বাবা-মাকে জানায়। পরে বিষয়টি বন্দর থানা পুলিশকে জানালে পুলিশ অভিযান চালিয়ে মুরাদকে গ্রেফতার করে।
ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বন্দর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু কালাম জানান, এই ঘটনায় ধর্ষণের শিকার ওই শ্যালিকা বাদী হয়ে নারী ও শিশু নির্যাতন আইন এবং তথ্য প্রযুক্তি আইনে মামলা দায়ের করেছে। ভগ্নিপতিকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

/এমও/

Advertisement

Advertisement

Pran-RFL ad on bangla Tribune x