গৌরীপুরে সংখ্যালঘু পরিবারের বাড়িতে হামলা, ২ দিন পর মামলা

ময়মনসিংহ প্রতিনিধি ০৪:০৩ , ফেব্রুয়ারি ১৫ , ২০১৮

সুনীল রবিদাসের বাড়িতে হামলার পর

গৌরীপুরের ময়লাকান্দা ইউনিয়নের গোবিন্দপুর মধ্য বাজারের সুনীল রবিদাসের বাড়িতে হামলা, ভাঙচুর ও লুটপাটের ঘটনার ২ দিন পর মামলা দায়ের করা হয়েছে। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ৪ জনের নামে ও ১৫-২০ জনকে অজ্ঞাত আসামি করে সুনীল রবিদাস বাদী হয়ে গৌরীপুর থানায় মামলাটি দায়ের করেন। গৌরীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) দেলোয়ার আহম্মেদ এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

ওসি জানান, পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে এবং ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের সদস্যদের অভিযোগের ভিত্তিতে মামলা দায়ের করা হয়েছে। এজাহারভুক্ত আসামিদের গ্রেফতারে পুলিশ তৎপর রয়েছে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

মামলার আসামিরা হলো- গোবিন্দপুর গ্রামের আহাম্মদ আলীর ছেলে রুবেল (২৪), কাদির মিয়ার ছেলে বিল্লাল, মাহবুবুর রহমান (২১) ও মোর্শেদুজ্জামাম সেলিমের ভাতিজা অপু (২০)।

সুনীল রবিদাসের বাড়িতে হামলার পর

মামলার বিবরণে জানা যায়, দীর্ঘদিন ধরে রবিদাস সম্প্রদায়ের কয়েকটি পরিবারের লোকজন গোবিন্দপুর বাজারের পাশে সরকারি খাস জমি বন্দোবস্ত নিয়ে বসবাস করে আসছিলেন। পুরনো ঘর ভেঙে নতুন করে ঘরের কাজ করছিলেন ময়লাকান্দা ইউনিয়ন পরিষদের চৌকিদার মনমোহন রবিদাসের পুত্র সেলুন কর্মচারি সুনীল রবিদাস। স্থানীয় গোবিন্দপুর গ্রামের আহাম্মদ আলীর ছেলে রুবেল (২৪), কাদির মিয়ার ছেলে বিল্লাল, মাহবুবুর রহমান ও মোর্শেদুজ্জামাম সেলিমের ভাতিজা অপু তার কাছে ৩০ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করে। দাবিকৃত টাকা দিতে না পারায় গত ১১ ফেব্রয়ারি রাত ২টার সময় তার বাড়িতে হামলা চালানো হয় এবং ভাঙচুর করে ঘরের মালামাল লুটপাট করে নিয়ে যায় তারা।  

এ ঘটনায় বাদী সুনীল রবিদাস জানান, ভাঙচুরের সময় অপু, রুবেল, বিল্লালসহ আরও ১০-১২ জন উপস্থিত ছিল। এই ঘটনার সুষ্ঠু বিচার দাবি করেছেন সুনীল।  

সুনীল রবিদাসের বাড়িতে হামলার পর

সুনীল রবিদাসের স্ত্রী রিনা রানী রবিদাস জানান, মধ্যরাতে আমার স্বামী বাড়িতে না ফেরায় আমি ঘুমিয়ে পড়ি। হঠাৎ করে ভাঙচুরের আওয়াজ শুনে আমার ঘুম ভাঙে। জেগে দেখি কয়েকজন সন্ত্রাসী দেশীয় অস্ত্র দিয়ে আমার নির্মাণাধীন ঘর ভাঙচুর করছে। ঘর ভাঙতে দেখে আমি তাদের হাতে-পায়ে ধরে কান্নাকাটি করলেও আমার কথা শোনেনি। ঘর ভেঙে তারা সঙ্গে করে নতুন ঘর তৈরির মালামালও নিয়ে গেছে।

ময়লাকান্দা ইউনিয়নের ৮ নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য সামসুল আলম জানান, জন্মের পর থেকেই দেখে আসছেন রবিদাস সম্প্রদায়ের লোকজন এখানে বসবাস করছে। সরকার দলীয় কারও ছত্রছায়ায় দুর্বৃত্তরা কোন অধিকারে তাদের ঘর ভাঙচুর করেছে সেটা তার জানা নাই। তবে সন্ত্রাসীদের কঠোর বিচার দাবি করেছেন তিনি।

এ ব্যাপারে ময়লাকান্দা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান রিয়াদুজ্জামান (রিয়াদ) জানান, ওই রবিদাস সম্প্রদায়ের ওপর হামলার ঘটনা নতুন নয়। এর আগেও আওয়ামী লীগ ঘনিষ্ঠ স্থানীয় কয়েকজন সন্ত্রাসী এ ধরনের হামলার ঘটনা ঘটিয়েছে বলেও জানান তিনি।

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় উপ-কমিটির সাবেক সহ-সম্পাদক মোর্শেদুজ্জামাম সেলিম বলেন, ‘হামলার মূল হোতা জুয়েলকে বাদ দিয়ে রাজিনৈতিক প্রতিহিংসার কারণে তার ভাতিজা অপুকে মামলায় জড়ানো হয়েছে।’ সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে ঘটনার সাথে জড়িতদের চিহ্নিত করে শাস্তি দাবি করেছেন তিনি।

/এএইচ/

x