হাতাহাতির ঘটনায় জাবিতে আওয়ামীপন্থী শিক্ষকদের দু’পক্ষে উত্তেজনা

জাবি প্রতিনিধি ১৫:৪২ , এপ্রিল ১৭ , ২০১৮

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়
জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে মঙ্গলবার ভোরে আওয়ামীপন্থী শিক্ষকদের দু’পক্ষের হাতাহাতির পর সেখানকার শিক্ষকদের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছে।

ভোর পৌনে ৫টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশমাইল এলাকায় পরিবহন ডিপোর সামনে উপাচার্য অধ্যাপক ফারজানা ইসলাম এবং সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক শরীফ এনামুল কবিরের অনুসারী শিক্ষকদের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে।

উপাচার্যের বিরুদ্ধে বিশ্ববিদ্যালয় অ্যাক্ট-১৯৭৩, স্ট্যাটিউট ও সিন্ডিকেট পরিচালনা বিধি লঙ্ঘনের অভিযোগ এনে ডাকা ধর্মঘটের অংশ হিসেবে পরিবহন ডিপোতে তালা দেওয়া এবং তাতে বাধা দেওয়াকে কেন্দ্র করে ওই পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়।

এ ঘটনার পর সকাল ৮টার দিকে শরীফ এনামুল কবিরের অনুসারী শিক্ষকরা বিশ্ববিদ্যালয়ের নতুন ও পুরাতন প্রশাসনিক ভবনের সামনে অবস্থান নিয়ে ধর্মঘট শুরু করেন। সকাল পৌনে ১১টার দিকে উপাচার্য ফারজানা ইসলাম তার অনুসারী শিক্ষকদের নিয়ে পুরাতন প্রশাসনিক ভবনে উপাচার্য কার্যালয়ে প্রবেশ করতে চাইলে শরীফ এনামুল কবিরের অনুসারী শিক্ষকদের বাধার মুখে পড়েন। এ সময় দু’পক্ষ মুখোমুখি অবস্থান নেন। দু’পক্ষের মধ্যে উত্তপ্ত বাক্যবিনিময় হয়। এ সময় কয়েকজন শিক্ষক উভয়পক্ষকে নিবৃত্ত করেন।

এ ঘটনায় শরীফ এনামুল কবিরের অনুসারী কয়েকজন শিক্ষক লাঞ্ছিত হয়েছেন দাবি করে তারা এর বিচার চান। এ সময় উপাচার্য ফারজানা ইসলাম তাদের উদ্দেশে বলেন, ‘পরিবহন ডিপোর ফটকে তালা ঝুলানোর খবর শুনে প্রক্টরিয়াল বডিসহ প্রশাসনের কয়েকজন শিক্ষক সেখানে যান। কারা তালা ঝুলিয়েছে তা তারা জানতেন না। আমি যেহেতু ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছিলাম না তাই কারা দোষী তা আমি বলতে পারবো না। এটি তদন্তসাপেক্ষ ব্যাপার।’

তিনি আরও বলেন, ‘আপনাদের আন্দোলন করার অধিকার যেমন রয়েছে, তেমনি অন্যদের আন্দোলন না করার অধিকারও রয়েছে। তাই বাস আটকে দিয়ে যারা আন্দোলন সমর্থন করে না তাদের বাধা দেওয়ার অধিকারও আপনাদের নেই।’

ভিসি বলেন, ‘আপনারা আগে থেকে না জানিয়ে সরাসরি সর্বাত্মক ধর্মঘটে গিয়েছেন। আজকে সিলেকশন বোর্ড ছিল। এজন্য দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে বিশেষজ্ঞরা এসেছেন। তাদের ফেরত যেতে হয়েছে। এতে বিশ্ববিদ্যালয়ের আর্থিক ক্ষতি হয়েছে।’

ধর্মঘট পালনকারী শিক্ষকদের শান্তিপূর্ণভাবে আন্দোলন করার অনুরোধ জানিয়ে সোয়া ১১টার দিকে বাসভবনের দিকে চলে যান উপাচার্য। ঘটনাস্থল ত্যাগ করার পর উপাচার্য তার অনুসারীরা হাতাহাতির ঘটনায় লাঞ্ছনার প্রতিবাদে প্রশাসনিক ভবনের সামনের সড়কে মানববন্ধন করেন।

প্রসঙ্গত, গত ১৫ ফেব্রুয়ারি উপাচার্য হিসেবে ফারজানা ইসলাম পুন:নিয়োগ পাওয়ার পর থেকেই বিশ্ববিদ্যালয়ের আওয়ামীপন্থী শিক্ষকদের মধ্যে বিভাজন স্পষ্ট হতে থাকে। সাবেক উপাচার্য শরীফ এনামুল কবির ও বর্তমান উপাচার্য ফারজানা ইসলাম দুই মেরুতে বিভক্ত হয়ে পড়েন।

 

আরও পড়ুন:

জাবি’তে আওয়ামীপন্থী শিক্ষকদের দু’পক্ষের হাতাহাতি

 

/এসটি/চেক-এমওএফ/

x