ঈদযাত্রায় যেসব ব্যবস্থা নিয়েছে বরিশাল নদী বন্দর

বরিশাল প্রতিনিধি ১৩:১৪ , জুন ১৩ , ২০১৮

লঞ্চঈদুল ফিতর উপলক্ষে বরিশাল-ঢাকা নৌপথে ঢাকা প্রান্ত থেকে লঞ্চ-স্টিমারের বিশেষ সার্ভিস চালু হয়েছে আজ বুধবার (১৩ জুন) থেকে। ঈদের পরেও বেশ কয়েকদিন পর্যন্ত এই সার্ভিস চালু থাকবে। মানুষের অতিরিক্ত ভিড় সমলানোর পাশাপাশি ঈদযাত্রা নিরাপদ ও আরামদায়ক করার জন্য বিশেষ ব্যবস্থা নিয়েছে বরিশাল নদী বন্দর কর্তৃপক্ষও।

বরিশাল নদী বন্দরের নৌ-চলাচল এবং যাত্রী নিরাপত্তা বিষয়ক দায়িত্বপ্রাপ্ত উপপরিচালক আজমল হুদা মিঠু জানান, ‘ঈদে মানুষের আসা-যাওয়ার এ সময়টায় নৌ-বন্দরে নিয়ন্ত্রন কক্ষ খোলা হয়েছে।  বিশ্রামাগার তৈরি, স্বেচ্ছাসেবক নিয়োগ এবং আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর বিশেষ দল মোতায়েন করা হয়েছে। ওভারলোডিং, ছিনতাই, অজ্ঞান-পার্টির দৌরাত্ম প্রতিরোধে ক্যাম্পেইন চালানো হয়েছে। নৌ-দুর্ঘটনা প্রতিরোধে নৌপথের বয়া, বিকন-বাতি এবং চিহ্ন সমূহ প্রতিস্থাপন,দক্ষ চালক-নাবিক দিয়ে নৌযান চালনা,পাইলটিং সার্ভিস, টাগ-বোট এবং ফায়ার সার্ভিস টিমকে প্রস্তুত রাখা হয়েছে।’

লঞ্চ মালিক সমিতির বরিশাল শাখার সহসভাপতি এবং ত্রিতল সুন্দরবন লঞ্চ বহরের মালিক সাইদুর রহমার রিন্টু জানান, ‘এবার  ঈদ উপলক্ষে বরিশাল-ঢাকা উভয় প্রান্ত থেকে দিনে চলাচলকারী তিনটি জাহাজসহ মোট ২৩টি ত্রিতল-নৌযান চলাচল করবে। ঈদের আগের তিনদিন এবং পরের তিন দিন উভয় প্রান্ত থেকে যাত্রীর চাপ অনুযায়ী ডাবল-ট্রিপ দেওয়া হবে।’

রিন্টু দাবি করেন, বছরের অন্যান্য সময়ে যাত্রী কম থাকায় রেয়াতি হারে নেওয়া ভাড়ার ক্ষতি পুষিয়ে নিতে ঈদের সময় বেশি যাত্রী নিচ্ছেন তারা। তবে বিআইডব্লিউটিএ’র নির্ধারিত হারে ভাড়াই নেওয়া হচ্ছে। সিঙ্গেল ট্রিপের জন্য এসি, নন-এসি ভেদে এ ভাড়ার হার হচ্ছে ডেক ২৫০থেকে ২৮০ টাকা, সোফা ৬০০ থেকে ৭০০ টাকা, সিঙ্গেল কেবিন ১১০০ থেকে ১৩০০ টাকা, ডাবল কেবিন ২২০০ থেকে ২৫০০ টাকা, সেমি-ভিআইপি ৩০০০ থেকে ৩৫০০ টাকা, ভিআইপি ৫০০০ থেকে ৮০০০ টাকা।লঞ্চ

এদিকে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন সংস্থা’র (বিআইডব্লিউটিসি) উপ-মহাব্যবস্থাপক (বাণিজ্য/ যাত্রী) শেখ মু. নাসিম জানান, রাষ্ট্রীয় এ সংস্থার চারটি নিয়মিত জাহাজের সঙ্গে আরও দুইটি যুক্ত হয়ে মোট ছয়টি জাহাজ দিয়ে ঈদ-স্পেশাল সার্ভিস শুরু হবে। বুধবার (১৩ জুন) থেকে ২৪ জুন পর্যন্ত এগুলো চলবে।

এই কর্মকর্তা বলেন, ‘বুধবার ঢাকা থেকে পিএস মাহসুদ জাহাজ ছাড়বে সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় ও লেপচা ছাড়বে সন্ধ্যা ৭টায়। এর মধ্যে মাহসুদ যাবে খুলনা পর্যন্ত এবং লেপচা যাবে মোড়েলগঞ্জ পর্যন্ত।

এছাড়া জাহাজ টার্ন, মধুমতি, এমভি বাঙালি ও অস্ট্রিচ এবারের ঈদে যাত্রী পরিবহন করবে।’

তিনি জানান, ঘোষিত শিডিউল অনুযায়ী পেডেল স্টিমার (পিএস) অস্ট্রিচ ১৪, ১৭,২০ জুন ঢাকা প্রান্ত থেকে, ১৫ জুন বড়মাছুয়া থেকে এবং ১৯ ও ২২ জুন বরিশাল প্রান্ত থেকে ছাড়বে। পিএস লেপচা ১৯ জুন মোড়েলগঞ্জ, ২১ জুন ঢাকা, ২৩ জুন হুলারহাট থেকে চলাচল করবে। পিএস টার্ন ১৫, ২০ ঢাকা থেকে, ১৮ জুন হুলারহাট এবং ২২ জুন মোড়েলগঞ্জ থেকে ছাড়বে। পিএস মাহসুদ ১৬, ১৯, ২২ জুন ঢাকা থেকে, ১৫, ১৮, ২১ জুন বরিশাল থেকে এবং ২৪ জুন মোড়েলগঞ্জ থেকে চলাচল করবে।

এ সংস্থার জাহাজ এমভি ( মোটরাইজড ভেসেল) মধুমতি ১৫, ২১ জুন ঢাকা থেকে, ১৭ জুন মোড়েলগঞ্জ এবং ২৩ জুন বরিশাল থেকে ছাড়বে। এমভি বাঙ্গালি ১৪, ১৮ জুন ছাড়বে ঢাকা থেকে, ১৬ ও ২০ জুন বরিশাল থেকে।

বিআইডব্লিউটিসি’র  এসব জাহাজ চাঁদপুর, বরিশাল, ঝালকাঠি স্টেশন ধরবে এবং এ জাহাজসূচি প্রয়োজনে পরিবর্তন হতে পারে বলেও শেখ মু. নাসিম জানান।

বিআইডব্লিউটিসি’র বরিশাল স্টেশনের দায়িত্বে নিয়োজিত সহকারী-মহাব্যবস্থাপক সৈয়দ আবুল কালাম আজাদ বলেন, ‘১৬৯ কিলোমিটারের বরিশাল-ঢাকা নৌপথের জন্য জনপ্রতি একমুখী ভাড়া হচ্ছে ১০৫০ টাকা ( প্রথম শ্রেণি), ৬৩০ টাকা (দ্বিতীয় শ্রেণি) এবং ১৭০ টাকা ডেক শ্রেণি, যা এ রুটের বেসরকারি লঞ্চ থেকে শতকরা ৩০-৫০ ভাগ কম। ঈদে ঘরমুখো যাত্রীদের ভোগান্তি লাঘবে জাহাজের ৫০ ভাগ কেবিন টিকিটের আবেদন ১৫ রমজান থেকে অনলাইনে দেওয়া হয়েছে। ঈদে ঘরে ফেরা মানুষের যাত্রীসেবা নিশ্চিত করতে ইতোমধ্যে বিভিন্ন ধরনের ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।’এছাড়া বরিশাল অঞ্চলের সঙ্গে দেশের অন্যান্য এলাকার সংযোগ রক্ষাকারী সড়ক-মহাসড়কে ফেরি  এবং  অভ্যন্তরীণ ও উপকূলীয় নৌ-রুটের জন্য  বিআইডব্লিউটিসি’র ৫টি সি-ট্রাক এবং ২টি উপকূলীয়  জাহাজও এসময়ে নিয়মিত চলাচল ও যাত্রী পরিবহন করবে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

আরও পড়ুন- 

বিআইডব্লিউটিসি’র ঈদ স্পেশাল সার্ভিস শুরু বুধবার

লঞ্চের অগ্রিম টিকিট বিক্রি শুরুর আগেই শেষ!

 

/এফএস/

x