ভাসানী বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ সভাপতিসহ ৫ নেতাকে সাময়িক বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত

টাঙ্গাইল প্রতিনিধি ০০:৫০ , অক্টোবর ০৯ , ২০১৮

মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়টাঙ্গাইলের মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের পাঁচ নেতাকে সাময়িক বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত নিয়েছে কর্তৃপক্ষ। এদের মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি সজিব তালুকদারও রয়েছে। সোমবার (৮ অক্টোবর) সন্ধ্যায় ঢাকার রিজেন্ট বোর্ডে এক সভায় সর্বসম্মতিক্রমে তাদেরকে সাময়িক বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। শিক্ষকদের লাঞ্ছনার ঘটনায় জড়িত থাকার দায়ে তাদের বিরুদ্ধে এমন ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ সভাপতি সজিব তালুকদার ছাড়াও সহ-সভাপতি মো. ইমরান মিয়া, আদ্রিতা পান্না, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক জাবির ইকবাল ও ইয়াসির আরাফাতের নাম রয়েছে ওই তালিকায়। সোমবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক  বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন কর্মকর্তা বাংলা ট্রিবিউনকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের রিজেন্ট বোর্ডের সভায় সর্বসম্মতিক্রমে তাদের সাময়িক বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। সিদ্ধান্ত কার্যকর হলে মঙ্গলবার (৯ অক্টোবর) অফিস চলাকালীন সময়ে চিঠির মাধ্যমে তাদের সাময়িক বহিষ্কার করা হবে।

উল্লেখ্য, মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (মাভাবিপ্রবি) ছাত্রলীগের হাতে শিক্ষক লাঞ্ছিত হওয়ার অভিযোগে একইসঙ্গে ৫৬ শিক্ষক বিভিন্ন প্রশাসনিক পদ থেকে পদত্যাগ করেছেন। এরমধ্যে দুইজন রিজেন্ট বোর্ড সদস্য, চারজন ডিন, চারজন প্রভোস্ট, ১৪ জন বিভাগীয় চেয়ারম্যান, সব হলের হাউস টিউটর, সব সহকারী প্রক্টর রয়েছেন।

শিক্ষকদের লাঞ্ছিত করার ঘটনায় মাভাবিপ্রবি শাখা ছাত্রলীগের চার নেতার বিরুদ্ধে ভাইস চ্যান্সেলরের কাছে তাৎক্ষণিক বিচার না পাওয়ায় সোমবার (৮ অক্টোবর) দুপুরে শিক্ষক সমিতির পক্ষ থেকে ৫৬ জনের পদত্যাগপত্র বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার ড. তৌহিদুল ইসলামের কাছে জমা দেওয়া হয়।

শিক্ষক সমিতির পক্ষ থেকে জানানো হয়, গত শনিবার (৬ অক্টোবর) দ্বিতীয় বর্ষের দ্বিতীয় সেমিস্টারের পরীক্ষার ফল ঘোষণা করে পদার্থবিজ্ঞান বিভাগ। এ পরীক্ষায় এক ছাত্রী উন্নীত হতে পারেনি। তার ফল ৪-এর মধ্যে ১ দশমিক ৯৮। বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাদেশ অনুযায়ী সর্বনিম্ন ২ দশমিক ২৫ পেলে উন্নীত হিসেবে গণ্য করা হয়। এদিকে পরীক্ষার ফল একদিন আগে ঘোষণা করাকে অধ্যাদেশবিরোধী উল্লেখ করে মাভাবিপ্রবি ছাত্রলীগ সভাপতি সজীব তালুকদার তার সহযোগীদের নিয়ে রবিবার (৭ অক্টোবর) সকাল সাড়ে ৯টার দিকে কোয়ান্টাম মেকানিক্স-১ পরীক্ষায় ওই ছাত্রীকে সিটে বসিয়ে দেয়। এ পরীক্ষায় তার অংশ নেওয়ার ব্যাপারে বিভাগের কোনও অনুমোদন না থাকায় শিক্ষকরা এতে বাধা দেন। এ সময় ছাত্রলীগের সভাপতি সজীব তালুকদার ওই বিভাগের চেয়ারম্যান ড. আনোয়ার হোসেন এবং শিক্ষক মহিউদ্দিন তাসনিনকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ ও লাঞ্ছিত করে। ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা পাহারা দিয়ে ওই ছাত্রীর সম্পূর্ণ পরীক্ষা শেষ করায়। পরীক্ষা শেষ করানোর পর সব শিক্ষার্থীকে ডেকে অর্ডিন্যান্স পরিবর্তনের জন্য মিছিল শুরু করে। এ সময় কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ ও টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের সেমিস্টার ফাইনাল পরীক্ষা বন্ধ করে দেওয়া হয়। এ ঘটনায় ওইদিনই বিকাল ৪টায় জরুরি সভা ডাকে শিক্ষক সমিতি। সর্বশেষ দায়ীদের সাময়িক বহিষ্কারের বিষয়ে একমত হন তারা।

/এমপি/

x