বকশীগঞ্জে বন্যার পানিতে ডুবে ৭ জনের মৃত্যু

জামালপুর প্রতিনিধি ২৩:২১ , জুলাই ২১ , ২০১৯

জামালপুরজামালপুরের বকশীগঞ্জে বন্যায় মানুষের দুর্ভোগের পাশাপাশি কিছু অস্বাভাবিক মৃত্যুর ঘটনাও ঘটেছে। গত পাঁচ দিনে বকশীগঞ্জ উপজেলার প্রায় দেড় লাখ মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। পানিতে ডুবে এখন পর্যন্ত পাঁচ শিশুসহ সাতজন মারা গেছেন। অন্যদিকে বিষাক্ত সাপের দংশনে আরও একজন মারা গেছেন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বুধবার মেরুরচর ইউনিয়নের জাগিরপাড়া গ্রামে বন্যার পানিতে ডুবে মাসুদ মিয়ার ছেলে মিনহাজ উদ্দিন (৫) মারা যায়। একইদিন সাধুরপাড়া ইউনিয়নের বটতলা গ্রামের ফারুক মিয়ার ছেলে মাদ্রাসাছাত্র মাজ্জাদ হোসেন (১১) পানিতে ডুবে নিখোঁজ হলে একদিন পর তার লাশ ভেসে ওঠে। বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) সকাল ১০টায় সাধুরপাড়া ইউনিয়নের উত্তর ধাতুয়া কান্দা গ্রামের শহীরুদ্দিনের মেয়ে শরীফা আক্তার (৫) পানিতে ডুবে মারা যায়। শুক্রবার (১৯ জুলাই) সকালে মাছ ধরতে গিয়ে পানিতে ডুবে আবু বক্কর (৫৫) নামে এক ব্যক্তি মারা গেছে। তার বাড়ি বগারচর ইউনিয়নের গোপালপুর গ্রামে। একইদিন বিকালে বন্যার পানিতে ডুবে শাকিব খান (৫) নামে এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। সে সাধুরপাড়া ইউনিয়নের আইরমারী খান পাড়া গ্রামের রাশেদ খানের ছেলে। গোসল করতে গিয়ে পানিতে নিখোঁজ হন সুজন মিয়া (২৫) নামে এক পান ব্যবসায়ী। শুক্রবার বিকাল ৫টায় মেরুরচর ইউনিয়নের ঘুঘরাকান্দি ব্রিজের নিচে গোসল করতে যায় সে। তার বন্ধুদের সঙ্গে গোসল করার সময় প্রবল স্রোতে সে ভেসে যায়। তার বন্ধুরা ও স্থানীয়রা তাকে অনেক খোঁজাখুঁজি করেও পায়নি। রবিবার (২১ জুলাই) সকাল ১০টার দিকে উপজেলার মাইছানিরচর এলাকায় তার মরদেহ ভেসে ওঠে। তার বাড়ি বকশীগঞ্জ পৌর এলাকার চর কাউরিয়া সীমারপাড় গ্রামে।

শনিবার (২০ জুলাই) সকাল ১১টায় নিলক্ষিয়া ইউনিয়নের দক্ষিণ কুশলনগর গ্রামে বুদ্ধি প্রতিবন্ধী রাহাত মিয়া (১০) নামে এক শিশুর মৃত্যু হয়। সে ওই গ্রামের হামিদুল ইসলামের ছেলে। সকালে স্থানীয় কুশলনগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠের বন্যার পানিতে খেলতে গিয়ে পানিতে ডুবে মারা যায় সে। একইদিন দুপুর ১২টায় বকশীগঞ্জ ইউনিয়নের ঝালুরচর পশ্চিমপাড়া গ্রামের রাজা বাদশা (৫৫) নামে এক ব্যক্তি সাপের দংশনে মারা যান। বকশীগঞ্জ থানার ওসি একেএম মাহাবুব আলম মৃত্যর এসব খবর নিশ্চিত করেছেন।

 

 

/এনআই/

x