দুপচাঁচিয়া-আক্কেলপুর সড়কের বেহাল দশা, জনদুর্ভোগ চরমে

বগুড়া প্রতিনিধি ১১:৫৬ , আগস্ট ২৬ , ২০১৯

দুপচাঁচিয়া-আক্কেলপুর সড়কবগুড়ার দুপচাঁচিয়া-আক্কেলপুর সড়কটি দীর্ঘদিন সংস্কার না হওয়ায় বেহাল দশা। সড়কের বিভিন্ন স্থানে কার্পেটিং উঠে ছোটবড় অসংখ্য গর্ত সৃষ্টি হয়েছে। সামান্য বৃষ্টি হলেই গর্তগুলো পানিতে ভরে যায়। যানবাহন গর্তে পড়ে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়াসহ হতাহতের ঘটনাও ঘটে। এসব কারণে যাত্রী ও পরিবহন শ্রমিকদের দুর্ভোগ চরমে পৌঁছেছে। ভুক্তভোগীরা অবিলম্বে সড়কটি সংস্কারে সরকারের সংশ্লিষ্ট বিভাগের হস্তক্ষেপ কামনা করেন। অন্যদিকে বগুড়া সড়ক ও জনপথ বিভাগের কর্মকর্তারা বলছেন, শিগগিরই এ সড়ক সংস্কারের কাজ শুরু হবে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বগুড়ার দুপচাঁচিয়া উপজেলা সদর থেকে প্রায় ২০ কিলোমিটার উত্তরে জয়পুরহাট জেলার আক্কেলপুর উপজেলা। বগুড়া থেকে প্রতিদিন অনেক যানবাহন দুপচাঁচিয়া উপজেলা দিয়ে আক্কেলপুর হয়ে জয়পুরহাট, দিনাজপুরের হিলি স্থল বন্দরসহ আশপাশের বিভিন্ন জেলায় যাতায়াত করে। এ সড়কের পাশেই দুপচাঁচিয়া উপজেলা সরকারি খাদ্য গুদাম ও স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স রয়েছে। এ সড়কটি জিয়ানগর, গুনাহার ও চামরুল ইউনিয়নের জনগণের জেলা-উপজেলা সদর ও জয়পুরহাটে যাতায়াতের একমাত্র পথ। গত প্রায় ছয় বছর ভালোভাবে সংস্কার না হওয়ায় সড়কের বিভিন্ন স্থানে কার্পেটিং উঠে গেছে। সড়কে অসংখ্য গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। এ সড়ক নিয়ে বিভিন্ন পত্রিকায় লেখালেখি হয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে বগুড়া সড়ক ও জনপথ বিভাগ দুপচাঁচিয়া থেকে জিয়ানগর পর্যন্ত বিভিন্ন সময় অস্থায়ীভাবে সংস্কার করা হয়েছে। বেড়াগ্রাম থেকে জিয়ানগর হয়ে গোপিনাথপুর পর্যন্ত রাস্তাটি সংস্কার না করায় কিছুদিনের মধ্যেই সড়কটি আবার পূর্বের অবস্থায় ফিরে এসেছে।

দুপচাঁচিয়া-আক্কেলপুর সড়কে চলাচলকারী মিনিবাস চালক আমিনুল ইসলাম, ট্রাকচালক ফরিদুর রহমান, সিএনজি অটোরিকশাচালক আকরাম হোসেন জানান, এ সড়ক দিয়ে চলাচল করতে গেলে গাড়ির মূল্যবান যন্ত্রাংশ নষ্ট হয়ে যায়। সামান্য বৃষ্টি হলে গর্তগুলো পানিতে ঢেকে যায়। অনেক সময় এসব গর্তে পড়ে দুর্ঘটনা ঘটে।

জিয়ানগর গ্রামের ব্যবসায়ী গোলাম মোস্তফা, ধাপের হাটের ব্যবসায়ী রফিকুল ইসলাম, ভাতআন্দা গ্রামের শিক্ষক ইউনুস আলী জানান, দীর্ঘদিন সংস্কার না করায় দুপচাঁচিয়া-আক্কেলপুর সড়কটি অভিশাপে পরিণত হয়েছে। তারা অবিলম্বে সড়কটি চলাচলের উপযোগী করতে সরকারের সংশ্লিষ্ট বিভাগের জরুরি হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

নির্ভরযোগ্য সূত্র জানায়, ২০১৮ সালের ১১ অক্টোবর একনেকে জয়পুরহাটের আক্কেলপুরের গোপিনাথপুর থেকে বগুড়ার দুপচাঁচিয়ার তালোড়া হয়ে নন্দীগ্রামের ওমরপুর পর্যন্ত প্রায় সাড়ে ৪৬ কিলোমিটার সড়কের প্রকল্প অনুমোদন হয়েছে। ১৮ ফুট প্রশস্ত ও মজবুত এ সড়কের জন্য খরচ ধরা হয়েছে ১২৩ কোটি টাকা। ২০২০ সালের ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যে প্রকল্প বাস্তবায়নের কথা। তবে ১১ মাস অতিবাহিত হলেও এ প্রকল্প এখনো আলোর মুখ দেখেনি।

এ প্রসঙ্গে বগুড়া সড়ক ও জনপথ বিভাগের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী তানিমুল হক সাংবাদিকদের জানান, আক্কেলপুরের গোপিনাথপুর থেকে দুপচাঁচিয়া হয়ে নন্দীগ্রামের ওমরপুর পর্যন্ত প্রায় সাড়ে ৪৬ কিলোমিটার সড়কটি ১২ ফুট থেকে ১৮ ফুট প্রশস্তকরণ প্রকল্পের দরপত্র আহ্বান করা হয়। এরইমধ্যে পাঁচটি প্যাকেজে পাঁচজন ঠিকাদারও নির্বাচিত হয়েছে। এই বর্ষা মৌসুমের পরেই প্রকল্পটির কাজ পুরোদমে শুরু হবে। 

/জেবি/এমএমজে/

x