পিট-ডিক্যাপ্রিওর আরাধ্য অটোগ্রাফ

জনি হক, কান (ফ্রান্স) থেকে ০২:৩৯ , মে ২৩ , ২০১৯

দক্ষিণ ফ্রান্সের কানে পালে দে ফেস্তিভাল ভবনে বুধবার (২২ মে) সকাল সোয়া ৯টায় ঢুকেছি। এসকেলেটরে চেপে সোজা তিন তলায় উঠে দেখি লাইন লেগে গেছে। ‘ওয়ান্স আপন অ্যা টাইম ইন...হলিউড’ ছবির সংবাদ সম্মেলন পৌনে ১২টায়। তখনও আড়াই ঘণ্টা বাকি। কিন্তু পরে এলে ঢোকার আশা ছেড়ে দিতে হবে।

অন্যান্যবারের মতোই অ্যাক্রেডিটেশন পাওয়া সাংবাদিকরা বিভিন্ন রঙের ব্যাজ পেয়েছেন। এর মধ্যে গোলাপি রঙে হলুদ ফোঁটা যাদের ব্যাজে, তারা লাইন ছাড়াই ঢুকতে পারেন যেকোনও সংবাদ সম্মেলনে। কিন্তু আজ ব্যতিক্রম চিত্র। তাদেরও লম্বা লাইন চোখে পড়ার মতো। এদিকে গোলাপি, নীল, হলুদ ব্যাজধারীদের কী অবস্থা তা নাইবা বললাম।
গোলাপি রঙে হলুদ ফোঁটা ব্যাজধারীদের যারা এবারের আসরে কোনও সংবাদ সম্মেলনেই আসেননি, তারাও দেখছি আজ লাইন ধরেছেন। প্রথমে তাদের সবাই ঢোকার সুযোগ পেলেন। এরপর এলো আমাদের পালা। পাক্কা দুই ঘণ্টা পর ভাগ্যিস ঢুকতে পেরেছি।
হলিউডের দুই হেভিওয়েট তারকা ব্র্যাড পিট ও লিওনার্দো ডিক্যাপ্রিও সংবাদ সম্মেলনে আসবেন বলেই এমন অবস্থা। কান চলচ্চিত্র উৎসবের ৭২তম আসরে তারাই সবচেয়ে বড় আকর্ষণ। ল্যাপটপের ব্যাগটা কোনোরকম পেছনের দিকে ফাঁকা পাওয়া একটা চেয়ারের ওপর রেখে অবস্থান নিলাম মঞ্চের সামনে। মডারেটর অঁরি বেয়া জানিয়ে রাখলেন, সংবাদ সম্মেলন হবে ৪৫ মিনিট। যারা ইংরেজি বোঝেন না, তারা চাইলে ফরাসি ভাষার ট্রান্সলেটর যন্ত্র নিতে পারেন।
ফটোকলে আলোকচিত্রীদের ফ্রেমে বিভিন্ন ভঙ্গিতে দাঁড় করানোর পর কান উৎসবের পরিচালক থিয়েরি ফ্রেমো ‘ওয়ান্স আপন অ্যা টাইম ইন...হলিউড’ বাহিনীকে এগিয়ে নিয়ে এলেন। প্রথমে ঢুকলেন অস্ট্রেলিয়ান অভিনেত্রী মার্গট রোবি। তার পেছনে পরিচালক কোয়েন্টিন টারান্টিনো ও ব্র্যাড পিট। এরপর দুই প্রযোজক শ্যানন ম্যাকিনটোশ ও ডেভিড হেম্যানের মাঝে লিওনার্দো ডিক্যাপ্রিও। সংবাদকর্মীরা তখন সবাই ভক্ত!
দুই হার্টথ্রবকে সামনে পেয়ে কারও স্মার্টফোন বন্ধ হচ্ছে না। পিট সাত বছর পর আবারও কানসৈকতে পা রাখলেন। সবশেষ ২০১২ সালে ‘কিলিং দেম সফটলি’ ছবির প্রচারণার জন্য এসেছিলেন তিনি। আর অস্কারজয়ী ডিক্যাপ্রিও সবশেষ চার বছর আগে দক্ষিণ ফরাসি উপকূলে আসেন।

এবারই প্রথম পিট ও ডিক্যাপ্রিও একসঙ্গে পূর্ণদৈর্ঘ্য ছবিতে অভিনয় করলেন। এর আগে ২০১৫ সালে মার্টিন স্করসেজির স্বল্পদৈর্ঘ্য ছবিতে কাজ করেছেন তারা। তাদের বোঝাপড়া কতটা চমৎকার তা স্বাচ্ছন্দ্য দেখেই পরিষ্কার।
সংবাদ সম্মেলনে ডিক্যাপ্রিও বলেন, ‘আরামে কাজ করার ক্ষেত্রে ব্র্যাড বরাবরই দারুণ সহশিল্পী। আমরা একই প্রজন্মের মধ্যে বেড়ে উঠেছি। একই সময় আমাদের শুরুটা হয়েছে। আশা করছি, আমাদের চলচ্চিত্র শিল্প সম্পর্কিত ছবিতে আমরা সিনেম্যাটিক বন্ধুত্ব তৈরি করতে পেরেছি।’
‘রেভেন্যান্ট’ তারকার কথা শেষ হতেই পিট বলেন, ‘একই দৃশ্যে সামনে সেরাদের মধ্যে একজনকে সহশিল্পী হিসেবে পাচ্ছেন জানলে সেরা কাজটা এমনিতেই আসে। আশা করি, আমরা আবারও একসঙ্গে কাজ করবো।’
টারান্টিনো চেয়েছিলেন, সাংবাদিকরা যেন তার নবম ছবিটির গল্প ফাঁস না করেন। ‘ওয়ান্স আপন অ্যা টাইম ইন...হলিউড’-এর প্রেক্ষাপট ১৯৬৯ সালের লস অ্যাঞ্জেলেস। ঝলমলে পার্টি, উত্থান-পতনসহ সারাবিশ্বের সিনেমার প্রতি তার প্রেমপত্র এটি। গত ২০ মে উদ্বোধনী প্রদর্শনীর সমালোচকদের ভূয়সী প্রশংসা পেয়েছে ছবিটি। তাই তার কাছে মজার প্রশ্ন, এখনকার চেয়ে ষাট-সত্তর দশকে ছবি বানানোর সুযোগ পেলে কেমন লাগতো? ৫৬ বছর বয়সী এই নির্মাতার রসিক উত্তর, ‌‘মোবাইল ফোন আসার আগের যেকোনও সময়কে ছবি বানানোর জন্য বেছে নিতাম!’

পৌনে একঘণ্টা পর সংবাদ সম্মেলন শেষ হতেই সাংবাদিকরা মঞ্চের সামনে বিশাল জটলা করে ফেললেন। পিট, ডিক্যাপ্রিও আর টারান্টিনো কাকে রেখে কাকে অটোগ্রাফ দেবেন ভাবছিলেন! এত ভিড়, দিয়ে কুলাতে পারছিলেন না কেউই। আমি তিনজনের অটোগ্রাফই পেলাম।
সাল বাজিনে মঙ্গলবার (২১ মে) ‘ওয়ান্স আপন অ্যা টাইম ইন...হলিউড’ দেখেছি। কান উৎসবে যারা অংশ নিচ্ছেন না, তারা সাড়ে ৯ কোটি ডলার বাজেটের ছবিটি দেখতে পারবেন আগামী ২৬ জুলাই। ওইদিন যুক্তরাষ্ট্রসহ সারাবিশ্বে মুক্তি পাবে পিট-ডিক্যাপ্রিও অভিনীত টারান্টিনোর ষাটের দশকের রূপকথা।

/এমএম/

x