চলে গেলেন অভিনেতা গিরিশ কারনাড

বিনোদন ডেস্ক ১৪:৪০ , জুন ১০ , ২০১৯

গিরিশ কারনাডভারতের খ্যাতিমান অভিনেতা, নির্মাতা ও সাহিত্যিক গিরিশ কারনাড আর নেই। আজ (১০ জুন) সকালে বেঙ্গালুরুতে লাভেলি রোডে নিজ বাসভবনে তিনি শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন।
তার বয়স হয়েছিল ৮১। সকালে বার্তা সংস্থা এএনআইসহ বেশ কিছু ভারতীয় সংবাদমাধ্যম তার মৃত্যুর বিষয়টি জানায়। তিনি দীর্ঘদিন ধরে অসুস্থ ছিলেন।
এই চলচ্চিত্র ব্যক্তিত্বের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

তিনি বলেন, ‌‘বৈচিত্র্যপূর্ণ দক্ষতার কারণে গিরিশ কারনাড অভিনয়ের সব মিডিয়ামে স্মরণীয় হয়ে থাকবেন। তার কাজের জনপ্রিয়তা অম্লান হয়ে থাকবে।’

১৯৭০ সালে ‘সংস্কার’ ছবি দিয়ে বড় পর্দায় গিরিশ কারনাডের অভিনয় শুরু। ‘নিশান্ত’, ‘মন্থন’, ‘স্বামী’, ‘পুকার’-এর মতো হিট ছবিতে তাকে পাওয়া গেছে। ১৯৭১ সালে কন্নড় ছবি ‘বংশবৃক্ষ’-এর মাধ্যমে হাত ধরে পরিচালক হিসেবে যাত্রা করেন গিরিশ। ছবির জন্য তিনি সেরা পরিচালক হিসেবে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পান। ২০০৫ সালে মুক্তি পাওয়া ‘ইকবাল’ ছবিটিও তুমুল প্রশংসিত হয়। ২০১২ সালে ‘এক থা টাইগার’ এবং ২০১৭ সালে ‘টাইগার জিন্দা হ্যায়’ ছবিতে গিরিশ কারনাডের অনবদ্য অভিনয়ে আবার মুগ্ধ হন দর্শকরা। দুটি ছবিটিতেই নায়ক হিসেবে ছিলেন সালমান খান। 

অন্যদিকে, ছোট পর্দায়েও গিরিশ কারনাড সমান জনপ্রিয় ছিলেন। থিয়েটারেও তিনি জাঁদরেল শিল্পী।

বহুমুখী প্রতিভা গিরিশের জন্ম ১৯৩৮ সালের ১৯ মে বর্তমান মহারাষ্ট্রের মাথেরানে। চার ভাই বোনের মধ্যে তিনি ছিলেন তৃতীয়। কর্ণাটকে অঙ্ক ও সংখ্যাতত্ত্বে স্নাতক করেছেন। এরপর অক্সফোর্ডে রাজনীতি ও অর্থনীতি নিয়ে পড়াশোনা করেন। জ্যোতিষ শাস্ত্রেও তার ঝোঁক ছিল। রাজনীতি সচেতন গিরিশ কারনাড লেখালেখিতেও সাহসী ভূমিকা রেখেছেন।
পেয়েছেন পদ্মশ্রী (১৯৭৪), পদ্মভূষণ (১৯৯২) ও জ্ঞানপীঠ (১৯৯৮) সম্মাননা। আছে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারসহ চারটি ফিল্মফেয়ার পুরস্কার।
তার মৃত্যুতে বলিউডসহ ভারতের অন্যান্য চলচ্চিত্র ইন্ডাস্ট্রিতে শোক নেমে এসেছে।

/এম/এমওএফ/

x