ট্রাম্পের ঘোষণাকে ‘অন্যায্য ও কাণ্ডজ্ঞানহীন’ বলছে সৌদি আরব

বিদেশ ডেস্ক ১৬:৪২ , ডিসেম্বর ০৭ , ২০১৭

জেরুজালেমকে ইসরায়েলের রাজধানী হিসেবে যুক্তরাষ্ট্রের স্বীকৃতির ঘোষণা দেওয়ায় মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সমালোচনা করেছে বন্ধু দেশ সৌদি আরব। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি জানিয়েছে, রিয়াদের পক্ষ থেকে দেওয়া এক বিবৃতিতে ট্রাম্পের এই পদক্ষেপকে ‘অন্যায্য ও কাণ্ডজ্ঞানহীন’ হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে।  

সৌদি বাদশাহ ও ডোনাল্ড ট্রাম্প
জাতিসংঘ, ইউরোপীয় ইউনিয়ন, আরব লীগ, সৌদি আরব, জর্ডানসহ বিভিন্ন দেশ ও সংস্থার আহ্বান উপেক্ষা করে বুধবার (৬ ডিসেম্বর) জেরুজালেমকে ইসরায়েলের রাজধানী হিসেবে স্বীকৃতির ঘোষণা দেন ট্রাম্প। হোয়াইট হাউসে কূটনীতিকদের অভ্যর্থনা কক্ষে এক ঘোষণায় ট্রাম্প বলেন, ‘আমি মনে করছি, জেরুজালেমকে ইসরায়েলের রাজধানী হিসেবে আনুষ্ঠানিক স্বীকৃতির এটাই সময়।’

বৃহস্পতিবার (৭ ডিসেম্বর) বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়, সৌদি আরবসহ অন্যান্য আরব দেশগুলো মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সিদ্ধান্তের নিন্দা জানিয়েছে। এক বিবৃতিতে সৌদি আরব জানায়, ‘রাজপরিবার মার্কিন প্রেসিডেন্টের সিদ্ধান্তে মর্মাহত। ইতোমধ্যে এমন অন্যায্য ও কাণ্ডজ্ঞানহীন আচরণের পরিণাম সম্পর্কে সতর্ক করেছি আমরা।’

সৌদি রয়্যাল কোটের দাবি, জেরুজালেম নিয়ে মার্কিন এই অবস্থান তাদের শান্তি প্রক্রিয়ার পরিপন্থী। এটা জেরুজালেম প্রশ্নে ঐতিহাসিকভাবে তাদের নিরপেক্ষ অবস্থানের সঙ্গে সাংঘর্ষিক।

এই ইস্যুতে আরব লিগের বৈঠকও ডেকেছে জর্ডান ও ফিলিস্তিন। এছাড়া জেরুজালেম ইস্যুতে ওআইসির জরুরি বৈঠক ডেকেছেন তুর্কি প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়্যেব এরদোয়ান।

অন্যান্য মুসলিম দেশও নিন্দা জানাতে শুরু করেছে। ট্রাম্পের এই সিদ্ধান্তের নিন্দা জানিয়েছে তুরস্ক। এই ঘোষণাকে অবৈধ বলে ঘোষণা করেছে তারা। দেশটির মার্কিন দূতাবাসের সামনে বিক্ষোভ করছেন তুর্কি জনগণ।

মালয়েশীয় প্রধানমন্ত্রী নাজিব রাজাকও সারাবিশ্বের মুসলিমদের এই পদক্ষেপের বিপক্ষে অবস্থান নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন।

এদিকে জেরুজালেমকে ইসরায়েলের রাজধানী ঘোষণার সিদ্ধান্ত প্রত্যাখ্যান করার হুমকি দিয়েছেন ফিলিস্তিনি প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাস। ফিলিস্তিনি নেতৃত্ব এই সিদ্ধান্ত মানবে না বলে সাফ জানিয়ে দিয়েছেন তিনি। তবে নেতানিয়াহু এই পদক্ষেপে ট্রাম্পের প্রশংসা করে এবং কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন। তিনি বলেন, প্রেসিডেন্টের এই ঘোষণায় তার প্রতিশ্রুতি রক্ষা হলো ও সত্যের বিজয় হলো। নেতানিয়াহু অন্যান্য দেশগুলোকে জেরুজালেমকে রাজধানী স্বীকৃতি দেওয়ার আহ্বান জানান।

উল্লেখ্য, জেরুজালেমকে রাজধানী ঘোষণা ও দূতাবাস স্থানান্তর বিষয়ে ট্রাম্পকে সাবধান করেছিল জাতিসংঘ, ইউরোপীয় ইউনিয়ন, আরব লিগ, সৌদি আরব, জর্ডান, তুরস্ক, ফ্রান্স ও জার্মানিসহ বিভিন্ন দেশ ও সংস্থা। তার পূর্বসূরীরাও শান্তি প্রক্রিয়ার স্বার্থে জেরুজালেম ইস্যুতে কোনও সিদ্ধান্ত নেননি। ১৯৪৮ সালে ইহুদি রাষ্ট্র হিসেবে ইসরায়েল প্রতিষ্ঠার পর প্রথম দেশ হিসেবে যুক্তরাষ্ট্রই জেরুজালেমকে তাদের রাজধানীর স্বীকৃতি দিলো। 

 

/এমএইচ/এফইউ/

x