রুশবিরোধী বক্তব্যের পরই টিলারসনকে সরিয়ে দিলেন ট্রাম্প!

ব্রজেশ উপাধ্যায়, যুক্তরাষ্ট্র ২১:১৭ , মার্চ ১৩ , ২০১৮

ট্রাম্পের রুশ সংযোগ নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের মুখে পড়া সিআইএ-এর পরিচালক মাইক পম্পেও-কে যুক্তরাষ্ট্রের নতুন পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে নিয়োগ দিয়েছে হোয়াইটস হাউস। এক বছরেরও বেশি সময় ধরে দায়িত্ব পালনের পর বাদ পড়লেন ঝানু কূটনীতিক রেক্স টিলারসন। এখন ঘুরেফিরে তার বাদ পড়ার পেছনেও সামনে আসছে ট্রাম্পের রাশিয়া কানেকশন।

টুইটারে দেওয়া পোস্টে পররাষ্ট্রমন্ত্রী পরিবর্তনের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ট্রাম্প। তবে এ ঘটনায় রাশিয়ার পাশাপাশি নাম আসছে যুক্তরাষ্ট্রের ঘনিষ্ঠ মিত্র যুক্তরাজ্যেরও।

২০১৮ সালের ৪ মার্চ যুক্তরাজ্যের সালসবেরি শহরের একটি বিপণিকেন্দ্রের বেঞ্চে পক্ষত্যাগী সাবেক রুশ গোয়েন্দা সের্গেই স্ক্রিপাল এবং তার ৩৩ বছরের কন্যা ইউলিয়াকে অচেতন অবস্থায় পাওয়া যায়। পরে এ ঘটনায় রাসায়নিক ব্যবহারের সন্ধান পায় ব্রিটিশ কর্তৃপক্ষ। স্বভাবতই অভিযোগের তীর উঠে রাশিয়ার দিকে। ব্রিটিশ পার্লামেন্টে দেওয়া বক্তব্যে মঙ্গলবারের মধ্যে রাশিয়াকে বিষয়টি ব্যাখ্যা করার সময় বেঁধে দেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে। তার সঙ্গে যোগ দেন সদ্য দায়িত্ব হারানো মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী রেক্স টিলারসন। তার ভাষায়, এই ন্যক্কারজনক হামলা পরিষ্কারভাবে রাশিয়া থেকে এসেছে। মস্কোকে অবশ্যই এর মারাত্মক পরিণতি ভোগ করতে হবে।

ধারণা করা হচ্ছে, রাশিয়াকে এভাবে সরাসরি আক্রমণ ছুড়ে দেওয়াই কাল হয়েছে টিলারসনের। যুক্তরাজ্যে সাবেক রুশ গোয়েন্দাকে বিষ প্রয়োগের ঘটনায় অবশ্য হোয়াইট হাউসের পক্ষ থেকেও প্রতিক্রিয়া এসেছিল। তবে সেটা ছিল কিছুটা কৌশলী। এতে ঘনিষ্ঠ মিত্র যুক্তরাজ্যের পাশে থাকার কথা বলা হলেও রাশিয়াকে দোষারোপ করা হয়নি।

রাশিয়া ইস্যু ছাড়াও পররাষ্ট্র নীতি সংক্রান্ত আরও কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে ট্রাম্পের সঙ্গে তার মতপার্থক্য ছিল। এরমধ্যে কাতার সংকট থেকে শুরু করে উত্তর কোরিয়া ইস্যুর মতো ঘটনাবলীও রয়েছে।

এমন এক সময়ে রেক্স টিলারসনকে সরিয়ে দেওয়া হলো যখন উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উনের সঙ্গে ট্রাম্পের সম্ভাব্য বৈঠকের প্রস্তুতি নিচ্ছে হোয়াইট হাউস। এরইমধ্যে জাতিসংঘ থেকে শুরু করে দুনিয়ার বিভিন্ন দেশের নেতারা সম্ভাব্য ওই বৈঠককে স্বাগত জানিয়েছেন।

ধারণা করা হচ্ছে, উত্তর কোরীয় নেতার সঙ্গে বৈঠকের পক্ষে ট্রাম্প যে মত দিয়েছিলেন সে ব্যাপারেও শীর্ষ মার্কিন কূটনীতিককে অবহিত করেনি হোয়াইট হাউস। পররাষ্ট্রমন্ত্রীর দায়িত্ব পাওয়ার আগেই এক সাক্ষাৎকারে উত্তর কোরীয় নেতার সঙ্গে ট্রাম্পের ওই সম্ভাব্য বৈঠক নিয়ে অভাবনীয় সফলতার আশাবাদ জানিয়েছেন সিআইএ পরিচালক মাইক পম্পেও।

সম্প্রতি টুইটারে দেওয়া এক পোস্টে যুক্তরাষ্ট্রে ইস্পাত আমদানির ওপর ২৫ শতাংশ ও অ্যালুমিনিয়াম আমদানির ওপর ১০ শতাংশ কর আরোপের পরিকল্পনার কথা জানান ট্রাম্প। টুইটের ধারাবাহিকতায় ওই দুইটি খাতে উল্লিখিত মাত্রার শুল্ক আরোপের ঘোষণাপত্রে স্বাক্ষর করেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। এ নিয়ে ইউরোপীয় মিত্রদের সঙ্গে ট্রাম্প প্রশাসনের দূরত্ব তৈরি হয়। পাল্টা ব্যবস্থা নেওয়ার হুঁশিয়ারি দেয় চীন। ট্রাম্পকে মাথা ঠাণ্ডা রাখার পরামর্শ দেয় যুক্তরাষ্ট্রের আরেক ঘনিষ্ঠ মিত্র জাপান।

ইউরোপীয় কমিশনের প্রধান জিন ক্লাউডি জানকার বলেন, ‘কোনও অন্যায্য ব্যবস্থার কারণে আমাদের শিল্প ক্ষতিগ্রস্ত হলে আমরাও চুপ করে বসে থাকবো না। এমন হলে হাজার হাজার ইউরোপিয়ানের চাকরি ঝুঁকির মধ্যে পড়বে। আমরা হার্লি-ডেভিসন, লেভিস-এর বোরবোন ও নীল জিনসের ওপর কর আরোপ করবো।’ এক কথায় নিজের ঘোষিত এ বাণিজ্য যুদ্ধ বাস্তবায়নে মিত্রদের কঠিন বিরোধীতার মুখে পড়ে ট্রাম্প প্রশাসন। এমন এক পরিস্থিতির মধ্যেই টিলরাসনকে সরে যেতে হলো।

হোয়াইট হাউসের একজন কর্মকর্তা বলেন, প্রেসিডেন্ট উত্তর কোরিয়া এবং চলমান বাণিজ্য আলোচনা নিয়ে আসন্ন আলোচনার আগেই তার নতুন টিম গঠন করতে চেয়েছেন।

গত শুক্রবারই টিলারসনকে দায়িত্ব ছাড়ার জন্য বলেছিলেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। সেজন্য আফ্রিকা সফর সংক্ষেপ করে সোমবার দেশে ফিরে আসেন টিলারসন। দায়িত্ব পালনের জন্য তাকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। আশাবাদ জানিয়েছেন, নতুন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেই তার নতুন দায়িত্বে ভালো করবেন। সিআইএ’র পরিচালক হিসেবে দায়িত্ব পাচ্ছেন উপ-পরিচালক জিনা হ্যাসপেল।

এক বিবৃতিতে ট্রাম্প বলেন, সিআইএ পরিচালক মাইক পম্পেওকে নতুন পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব দিয়ে আমি গর্বিত। ওয়েস্ট পয়েন্টে প্রথমস্থান নিয়ে স্নাতক শেষ করেছেন। সেনাবাহিনীতে দায়িত্বপালন করেছেন। হার্ভাড থেকে আইনে স্নাতক করেছেন। তিনি বারবার নিজেকে প্রমাণ করেছেন।’

তিনি আরও বলেন, ‘সিআইএ’র উপ-পরিচালক জিনা হ্যাসপেল পম্পেওর স্থলাভিষিক্ত হতে যাচ্ছেন। ফলে তিনিই হচ্ছেন সিআইএর প্রথম নারী পরিচালক। এটা একটা মাইলফলক। মাইক ও জিনা এক বছরের বেশি সময় ধরে একসঙ্গে কাজ করছেন। তাদের মধ্যে দারুণ বোঝাপড়া রয়েছে।’

টিলারসনের প্রশংসা করে ট্রাম্প বলেন, ‘আমি রেক্স টিলারসনকে তার দায়িত্ব পালনের জন্য ধন্যবাদ জানাই।  গত ১৪ মাসে আমাদের অনেক কিছু অর্জিত হয়েছে। তার জন্য শুভ কামনা।’

/এমপি/

x