BPO Summit

কমনওয়েলথ প্রধানের পদে প্রিন্স চার্লসকেই সমর্থন করবেন থেরেসা মে

বিদেশ ডেস্ক ১৭:২১ , এপ্রিল ১৭ , ২০১৮

যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে বলেছেন, রাণী এলিজাবেথের পর কমনওয়েলথের প্রতীকী নেতার পদে আসীন হতে প্রিন্স চার্লসকে সমর্থন করবেন তিনি। এ সপ্তাহেই কমনওয়েলথের এলিজাবেথ পরবর্তী নেতা নির্ধারণের বিষয়টি চূড়ান্ত হয়ে যেতে পারে। উত্তরাধিকারসূত্রে পদ হস্তান্তরের কোনও শর্ত না থাকলেও  কমনওয়েলথের প্রতীকী প্রধান ছিলেন প্রিন্স চার্লসের দাদা ও পরে তার মা। প্রিন্স চার্লস তার মায়ের রাজক্ষমতার উত্তরাধিকারী।

এ সংক্রান্ত খবর প্রকাশ্যে এলো যখন যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে মঙ্গলবার তার দেশের গণ্যমান্য ব্যক্তিদের সামনে ভাষণ দেওয়ার প্রস্তুতি নিয়েছেন। সেখানে তার বক্তব্যে মে নতুন প্রজন্মকে কমনওয়েলথের বিষয়ে আগ্রহী করে তলার ওপর জোর দেবেন। তিনি মনে করেন, যথাযথভাবে আগ্রহী করে তুলতে না পারলে ভবিষ্যৎ প্রজন্ম কমনওয়েলথকে ‘অপ্রয়োজনীয়’ হিসেবে দেখতে শুরু করবে।  

থেরেসা মের মুখপাত্র জানিয়েছেন, প্রিন্স চার্লস ‘কমনওয়েলথের একজন গর্বিত সমর্থক এবং দীর্ঘ সময় ধরে তিনি কমনওয়েলথের বৈচিত্রের প্রশংসা করে আসছেন।... কমনওয়েলথের নেতা নির্বাচনের বিষয়টি সদস্য সব রাষ্ট্রের মতামতের ওপর নির্ভরশীল। আগামী শুক্রবার উইন্ডসর ক্যাসেলে এ নিয়ে আলোচনা হতে পারে। কমনওয়েলথের সিদ্ধান্ত সবার মতামতের ভিত্তিতেই নেওয়া হয়।’

সামনের বৃহস্পতিবার কমনওয়েলথের নেতারা লন্ডনে এক বৈঠকে মিলিত হবেন। এরপর তাদের উইন্ডসর ক্যাসেলে দেখা হওয়ার কথা। কমনওয়েলথের মহাসচিব প্যাট্রিসিয়া স্কটল্যান্ড বলেছেন, উইন্ডসোর ক্যাসেলের ওই সাক্ষাতের সময় নেতারা একে অপরের সঙ্গে বাধাহীনভাবে কথা বলতে পারবেন। তার ভাষ্য, ‘শুক্রবার অনুষ্ঠিতব্য উইন্ডসোর ক্যাসেলের আয়োজনে কমনওয়েলথের সদস্য ৫৩ দেশের নেতারা কোনও ধরাবাঁধা বিষয়ের ওপর আলোচনা না করে একে অপরের সঙ্গে মন খুলে কথা বলতে পারবেন। স্পর্শকাতর বিষয়গুলোর সমাধান খুঁজতে তারা একই পরিবারের সদস্যদের মতো যৌথভাবে কাজ করতে পারেন।’

গার্ডিয়ান লিখেছে, যুক্তরাজ্যের লেবার পার্টির নেতা জেরেমি করবিন শনিবার বিবিসিকে তার ভাবনার কথা জানিয়েছেন—কমনওয়েলথের প্রতীকী প্রধানের দায়িত্ব পর্যায়ক্রমে সভাপতির দায়িত্ব পালনকারী সদস্যদের ওপর ন্যাস্ত করা উচিত। তার বক্তব্য, ‘কমনওয়েলথের বিষয়ে রাণী খুবই আন্তরিক কিন্তু তার পরে নেতৃত্ব দেওয়ার জন্য কমনওয়েলথের নিজেরই সভাপতি নির্বাচিত করার পদ্ধতি গ্রহণ করা উচিত, যাতে করে পর্যায়ক্রমে সবাই সভাপতির পদে আসীন হয়।’

৯১ বছর বয়সী রাণী এলিজাবেথ ১৯৫২ সাল থেকে কমনওয়েলথের প্রতীকী প্রধান। প্রিন্স চার্লস কমনওয়েলথভুক্ত ৫৩ দেশের মধ্যে ১৬টি দেশের ভবিষ্যৎ রাজা হিসেবে উত্তরাধিকারসূত্রে মনোনীত।

/এএমএ/

x