এবার জেরুজালেমে দূতাবাস স্থানান্তর গুয়াতেমালার

বিদেশ ডেস্ক ১৯:০৫ , মে ১৬ , ২০১৮

যুক্তরাষ্ট্রের পর এবার জেরুজালেমে দূতাবাস উদ্বোধন করলো গুয়াতেমালা। বুধবার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন গুয়াতেমালার প্রেসিডেন্ট জিমি মোরালস ও ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু। ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্সের এক প্রতিবেদন থেকে এসব তথ্য জানা যায়।

জেরুজালেমে গুয়াতেমালার দূতাবাস

প্রতিবেদনে বলা হয়, সোমবার যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাস উদ্বোধনের সময় গাজা সীমান্তেই ইসরায়েলিদের গুলিতে প্রাণ হারাচ্ছিলেন ফিলিস্তিনিরা। তার দুইদিন পরেই গুয়াতেমালাও একই পথে হাঁটলো।

গত বছরের ৬ ডিসেম্বর মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প জেরুজালেমকে ইসরায়েলের একক রাজধানীর স্বীকৃতি দেন। বিশ্বজুড়ে নিন্দা আর তুমুল প্রতিবাদের মধ্যেও দূতাবাস স্থানান্তরের সিদ্ধান্তে অনড় থাকে যুক্তরাষ্ট্র। ফিলিস্তিনিদের ব্যাপক বিক্ষোভের মধ্যেই সোমবার জেরুজালেমে দূতাবাস স্থানান্তরের সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করে যুক্তরাষ্ট্র।

বুধবার গুয়াতেমালার দূতাবাস উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে নেতানিয়াহু বলেন, ‌’গুয়াতেমালার দূতাবাস উদ্বোধন অবাক হওয়ার মতো কিছু নয়। আপনারা সবসময়ই প্রথমদিকে থাকেন। ইসরায়েল স্বীকৃতি দেওয়া দ্বিতীয় দেশ আপনারা।‘

মোরালস বলেন, গুয়াতেমালা, ইসরায়েল ও যুক্তরাষ্ট্র সবসময়ই বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক বজায় রাখে।

সোমবার জেরুজালেমে হোয়াইট হাউসের দুই গুরুত্বপূর্ণ উপদেষ্টা ট্রাম্পের জামাতা জ্যারেড কুশনার ও মেয়ে ইভাঙ্কা ট্রাম্প যখন সঙ্গীত পরিবেশনার মধ্য দিয়ে উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শেষ করছিলেন, ফিলিস্তিনিরা তখন হতাহতদের নিয়ে ব্যস্ত। সোমবার দূতাবাস স্থানান্তরের প্রতিবাদে জোরালো হওয়া বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করতে সীমান্ত এলাকার ওই বিক্ষোভে অংশ নেন লাখো মুক্তিকামী ফিলিস্তিনি। এদিন নিহত ৫৮ ফিলিস্তিনিকে নিয়ে গ্রেট রিটার্ন মার্চ কর্মসূচি পালন করতে গিয়ে নিহত হওয়া ফিলিস্তিনির সংখ্যা ১০০ ছাড়িয়েছে।

বিশ্বের বেশিরভাগ দেশই জেরুজালেমে ইসরায়েলের কর্তৃত্ব সমর্থন করে না। তারা মনে করেন, শান্তি আলোচনার মধ্য দিয়ে সংকটের সমাধান করতে হবে। ফিলিস্তিনি নেতারা বলেন, দূতাবাস সরিয়ে যুক্তরাষ্ট্র আরও শান্তি বিনষ্ট করলো্। আরব বিশ্বে শান্তি মধ্যস্থতাকারী হিসেবে ব্যর্থ হয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।

ফিলিস্তিনি মধ্যস্থতাকারী সায়েব এরেকাত বলেন, ‌গুয়াতেমালার সরকার ইতিহাসের ভুল পক্ষ নিয়েছে। আন্তর্জাতিক আইন ও মানবাধিকার লঙ্ঘনকারীর পক্ষ নিয়েছে।

 

/এমএইচ/

x