মার্কিন সরকারের জঙ্গি নজরদারিকে চ্যালেঞ্জ করে মুসলিম সংগঠনের মামলা

ব্রজেশ উপাধ্যায়, যুক্তরাষ্ট্র ১৫:১৪ , আগস্ট ১০ , ২০১৮

মার্কিন সরকারের নজরদারিতে থাকা সন্দেহভাজন জঙ্গিদের তালিকাকে চ্যালেঞ্জ করে একটি মামলা দায়ের করেছে যুক্তরাষ্ট্রের মুসলিমদের অধিকার আদায়ের সংগঠন কাউন্সিল অন আমেরিকান ইসলামিক রিলেশনস (সিএআইআর)। অভ্যন্তরীণ রুটে চলাচলকারী বিমানের যাত্রীদের ওপর গোপনে নজরদারি চালানোর কর্মসূচিকেও চ্যালেঞ্জ করা হয়েছে। জঙ্গি নজরদারির তালিকায় নাম থাকা ২০ জন ব্যক্তির পক্ষে সংগঠনটি এ মামলা দায়ের করে।

নজরদারির তালিকায় নাম থাকা ব্যক্তিদের বিমানে ভ্রমণ করতে দেওয়া হয় না ও হয়রানির শিকার হতে হয়
মামলার অভিযোগে দাবি করা হয়, এ ২০ ব্যক্তি শুধু মুসলিম হওয়ার কারণে তাদেরকে জঙ্গি নজরদারিতে রাখা হয়েছে। তারা সবাই নিরপরাধ আমেরিকান মুসলিম। তাদেরকে আনুষ্ঠানিকভাবে অভিযুক্ত করা হয়নি, গ্রেফতার করা হয়নি, সহিংস কোনও অপরাধের ঘটনায় দোষী সাব্যস্ত করা হয়নি। এ ব্যবস্থার কারণে এসব মুসলিম নিজ দেশে ‘দ্বিতীয় শ্রেণির নাগরিকের মতো’ জীবন যাপন করছেন বলেও অভিযোগ করা হয়।

সিএআইআর-এর জাতীয় নির্বাহী পরিচালক নিহাদ আওয়াদ বলেন, ‘আমেরিকান মুসলিমরা দ্বিতীয় শ্রেণির নাগরিকত্ব পাওয়ার কথা নয় এবং নিরপরাধ মুসলিমদেরকে হয়রানির লক্ষ্যবস্তু করতে সরকারকে নজরদারি তালিকা ব্যবহারের অনুমতি দেওয়াটা ফেডারেল আদালতের জন্য উচিত নয়।’

অভিযোগপত্রে বলা হয়, নজরদারির তালিকায় থাকা ব্যক্তিদেরকে বিমানে ভ্রমণ করতে দেওয়া হয় না । তাছাড়া তাদেরকে আক্রমণাত্মকভাবে তল্লাশি করা হয়, জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়, সীমান্ত পারাপারে ঘণ্টার পর ঘণ্টা আটকে রাখা হয়, তাদের ইলেক্ট্রনিকস পণ্য জব্দ করা হয় এবং ব্যাংক অ্যাকাউন্ট বাজেয়াপ্ত করা হয়।

সিএআইআর-এর জাতীয় মামলা-মকদ্দমাবিষয়ক পরিচালক লেনা মাসরি বলেন: ‘নজরদারি তালিকাটি মৌলিক সাংবিধানিক অধিকারের নজিরবিহীন লঙ্ঘন।’

মামলার বাদী পক্ষের দাবি, যেকোনও ধরনের নজরদারি তালিকা কিংবা ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞার ডাটাবেজ থেকে তাদের নাম বাদ দিতে হবে। অনাকাঙ্ক্ষিত এসব ঘটনার জন্য ক্ষতিপূরণও চেয়েছে তারা।

অ্যাটর্নি জেনারেল জেফ সেশনস ও এফবিআই পরিচালক ক্রিস্টোফার রে-সহ বিভিন্ন সরকারি সংস্থার কর্মকর্তাদেরকে মামলায় বিবাদী হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে।

 

/এফইউ/

x