যুক্তরাষ্ট্রের বিমান হামলায় নিহত হয় ৩০ আফগান: জাতিসংঘ

বিদেশ ডেস্ক ২১:২৯ , অক্টোবর ০৯ , ২০১৯

জাতিসংঘের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গত মে মাসে আফগানিস্তানে তালেবানদের কথিত মাদক ল্যাবগুলোতে যুক্তরাষ্ট্রের বিমান হামলায় ৩০ জন নিহত হয়েছে। ওই হামলায় আহত হয় নয় জন। চার মাস তদন্তের পর বুধবার এক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে আফগানিস্তানে নিযুক্ত জাতিসংঘের সহযোগী মিশন (ইউএনএএমএ) ও জাতিসংঘের মানবাধিকার সংস্থা। তবে এ প্রতিবেদন প্রত্যাখ্যান করেছে যুক্তরাষ্ট্র।চার মাস তদন্তের পর প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে জাতিসংঘ

চলতি বছরের ৫ মে’তে আফগানিস্তানের পশ্চিমাঞ্চলীয় ফারাহ ও নিমরোজ প্রদেশের কথিত মাদক উৎপাদনকারী ৬০টি ল্যাবে বিমান হামলা চালায় যুক্তরাষ্ট্র ও আফগান বাহিনী। চার মাস ধরে এ ঘটনার তদন্ত করে জাতিসংঘ। বুধবার ইউএনএএমএ ও জাতিসংঘের মানবাধিকার সংস্থা এক যৌথ বিবৃতিতে জানায়, ওই বিমান হামলায় হতাহতদের মধ্যে ১৪ শিশু ও পাঁচ নারী রয়েছে। হতাহতরা বেসামরিক ব্যক্তি হওয়ায় আন্তর্জাতিক মানবাধিকার আইন লঙ্ঘন করেছে যুক্তরাষ্ট্র ও আফগানিস্তান।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ইউএনএএমএ-এর মূল্যায়নে দেখা গেছে মাদক উৎপাদন কেন্দ্রের অভ্যন্তরে কর্মরত ব্যক্তিরা যুদ্ধকালীন কর্মকাণ্ডের সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিলো না। তারা আক্রমণ থেকে সুরক্ষার শর্তে সেখানে যোগ দিয়েছিল। যদি তারা সরাসরি সংঘর্ষের সঙ্গে সম্পৃক্ত হয় তাহলে ওই সুরক্ষার শর্ত বাতিল হওয়ার কথা ছিল।

যুক্তরাষ্ট্রে নিযুক্ত যুক্তরাষ্ট্রের বাহিনীর এক বিবৃতিতে জাতিসংঘের ওই প্রতিবেদন প্রত্যাখ্যান করা হয়েছে। দাবি করা হয়েছে সেখানে কোনও হতাহতের ঘটনা ঘটেনি।  ওই বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘আফগানিস্তানে নিযুক্ত যুক্তরাষ্ট্রের বাহিনী এক জটিল পরিবেশে সেইসব গ্রুপের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করছে যারা ইচ্ছাকৃতভাবে মানুষ মারে আর বেসামরিক মানুষের ভীড়ে লুকিয়ে থাকে। এমনকি তারা প্রপাগান্ডা অস্ত্র হিসেবে বেসামরিক হতাহতকেও ব্যবহার করে’। বেসামরিক হতাহত এড়াতে যুক্তরাষ্ট্রের বাহিনী অভূতপূর্ব পদক্ষেপ নিয়েছে বলে দাবি করা হয় ওই বিবৃতিতে।

আফগান নিরাপত্তা বাহিনী ও দেশটিতে নিযুক্ত যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বাধীন ন্যাটো বাহিনীর অভিযানে বেসামরিক মানুষ হত্যার ঘটনা নিয়ে চরম সমালোচনা রয়েছে। চলতি বছরের প্রথম অর্ধে দেশটিতে তাদের অভিযানে ৩ হাজার ৮১২ জন বেসামরিক মানুষ হতাহত হয়েছে বলে জুলাই মাসে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে জানায় জাতিসংঘ।

 

/এইচকে/জেজে/

x