তুরস্কের কাছে অস্ত্র বিক্রি স্থগিত করলো ফিনল্যান্ড

বিদেশ ডেস্ক ১৮:২২ , অক্টোবর ১০ , ২০১৯

তুরস্কের অভিযানের কারণে সিরিয়ায় বিদ্যমান জটিল মানবিক পরিস্থিতি মারাত্মক আকার নিতে পারে বলে সতর্ক করেছেন ফিনল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী অ্যান্তি রিন্নে। এই অভিযান নতুন শরণার্থী সংকট শুরু করতে পারে বলেও মনে করেন তিনি। সোশ্যাল ডেমোক্র্যাটদের নেতৃত্বে ফিনল্যান্ডের সেন্টার-লেফট সরকার সিরিয়ায় তুরস্কের অভিযানের নিন্দা জানিয়ে দেশটিতে সব ধরনের অস্ত্র রফতানি বন্ধের প্রতিশ্রুতি দিয়েছে।

তিন সপ্তাহ আগে আঙ্কারার কাছে ড্রোন রফতানির অনুমোদন দেয় ফিনল্যান্ড সরকার। তবে এখন এই ধরণের সব অস্ত্র রফতানি বন্ধ করে দিয়ে তুরস্কের অভিযানের নিন্দা জানিয়েছে হেলসিঙ্কি।

ফিনল্যান্ডের প্রতিরক্ষামন্ত্রী অ্যান্তি কাইক্কোনেন বলেন, পরিস্থিতি মারাত্মক। আমার নিজের দায়িত্বের এলাকা থেকে বলছি: ফিনল্যান্ড কখনোই সেইসব দেশের কাছে প্রতিরক্ষা সরঞ্জাম বিক্রি করে না যারা যুদ্ধ বা মানবাধিকার লঙ্ঘনে জড়িত। এখন থেকে ফিনল্যান্ড থেকে তুরস্কের কাছে নতুন অস্ত্র রফতানির লাইসেন্স অনুমোদন করা হবে না। আর ইতিমধ্যে অনুমোদন করা অস্ত্র রফতানির লাইসেন্সগুলোর পরিস্থিতিও তদন্ত করে দেখা হবে।

ফিনল্যান্ড সরকার মনে করে সিরিয়ার সংঘাতের কোনও সামরিক সমাধান নেই। আর তুরস্কের অভিযানের কারণে আইএসবিরোধী লড়াইয়ে যে সাফল্য পাওয়া গেছে তা নষ্ট হতে পারে।

২০১৭ সালে ফিনল্যান্ড ৭৭টি দেশে প্রায় ২০ কোটি ডলারের অস্ত্র রফতানি করে। বেশিরভাগ অস্ত্রই রফতানি হয় পোলান্ডে। তবে তাদের অস্ত্রের অন্যতম ক্রেতা তুরস্কও। দেশটিতে দেড় কোটি ডলারের অস্ত্র বিক্রি করেছে তারা।

প্রসঙ্গত, গত সোমবার (৭ অক্টোবর) সিরিয়ায় আইএসবিরোধী অভিযান চালানোর ঘোষণা দেয় তুরস্ক। সে সময় দেশটির প্রেসিডেন্ট রিস্যেপ তাইয়্যেব এরদোয়ানের মুখপাত্র ইব্রাহিম কালিন বলেন, সন্ত্রাসী আস্তানা গুঁড়িয়ে দিতেই তুর্কি সীমান্তবর্তী সিরিয়ার উত্তরাঞ্চলে সামরিক অভিযান পরিচালনার সিদ্ধান্ত নিয়েছে আঙ্কারা। মধ্যপ্রাচ্যে আইএসবিরোধী লড়াইয়ে যুক্তরাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ণ মিত্র কুর্দিদের নিয়ন্ত্রণাধীন এলাকায় তুরস্কের অভিযান শুরুর আগে সেখান থেকে নিজেদের সেনা সরিয়ে নেওয়ার ঘোষণা দেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। এই সিদ্ধান্তের জেরে তুমুল সমালোচনার মুখে পড়ে অভিযানের বিষয়ে তুরস্ককে সতর্ক করে দেন তিনি।

 

/জেজে/

x