‘ইতিহাস’ গড়লেন ভারতের প্রধান বিচারপতি

বিদেশ ডেস্ক ১৬:২৫ , নভেম্বর ০৯ , ২০১৯

রঞ্জন গগৈ সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি থাকাকালীন অনেক গুরুত্বপূর্ণ মামলার রায় দিয়েছেন তিনি। সেগুলোর মধ্যে অমিতাভ বচ্চনের আয়কর সংক্রান্ত মামলা, আসামে জাতীয় নাগরিক পঞ্জি চালুর মামলা তার অন্যতম। অবশেষে বাবরি মসজিদ মামলার রায় দিয়ে ইতিহাস সৃষ্টি করলেন ইতিহাসের এই সাবেক শিক্ষার্থী। অবসরের আগে এ মামলার রায় ঘোষণাকে তার জীবনের অন্যতম বড় সাফল্য হিসেবে দেখা হচ্ছে।

শনিবার বাবরি মসজিদ মামলার চূড়ান্ত রায়ে অযোধ্যার বিতর্কিত ওই ভূমিতে একটি মন্দির নির্মাণের নির্দেশনা দিয়েছেন  প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ নেতৃত্বাধীন বেঞ্চ। নির্দেশনা অনুযায়ী, বিতর্কিত স্থানটি সরকারি ট্রাস্টকে দেওয়া হবে। বাবরি মসজিদের ওই ২ দশমিক ৭৭ একর জমি পাবে হিন্দুরা। আগামী তিন মাসের মধ্যে একটি ট্রাস্টি বোর্ড গঠন করবে সরকার। পরে সেখানে মন্দির প্রাঙ্গণ নির্মাণ করবে তারা। পরিবর্তে অযোধ্যার অন্য স্থান থেকে মসজিদ নির্মাণের জন্য ৫ একর জমি পাবে মুসলিমরা।

সুপ্রিম কোর্টের ৪৬তম প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ। ৩ অক্টোবর ২০১৮ তিনি প্রধান বিচারপতি হিসেবে শপথ নিয়েছিলেন। প্রধান বিচারপতি হিসাবে তিনি আর কয়েক দিন থাকবেন। তার মেয়াদ আর কয়েক দিন আছে। ১৭ নভেম্বর অবসর নেবেন তিনি।

রঞ্জন গগৈয়ের জন্ম ১৯৫৪ সালের ১৮ নভেম্বর আসামের ডিব্রুগড়ে। তার বাবা কেশবচন্দ্র গগৈ ১৯৮২ সালে আসামের মুখ্যমন্ত্রী হন। রঞ্জন গগৈয়ের বেড়ে ওঠা ওখানে।

ডিব্রুগড়ে ডন বসকো স্কুলে তিনি পড়াশোনা করেছেন। তারপর দিল্লিতে চলে আসেন উচ্চশিক্ষার জন্য। দিল্লির সেন্ট স্টিফেন্স কলেজ থেকে ইতিহাসে স্নাতক হন। পরে দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আইন নিয়ে পড়াশোনা করেন।

১৯৭৮ সালে বার কাউন্সিলে যোগ দেন তিনি। গৌহাটি হাইকোর্টে প্র্যাকটিস শুরু করেন। পরে ২০০১ সালের ২৮ ফেব্রুয়ারি ওই হাইকোর্টেরই স্থায়ী বিচারপতি হিসেবে যোগ দেন। ২০১১ সালের ১২ ফেব্রুয়ারি পাঞ্জাব এবং হরিয়ানা হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি হিসাবে যোগ দেন। তার পরের বছর ২০১২ সালে তিনি সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি হিসাবে নিযুক্ত হন। তার ছয় বছর পর ২০১৮ সালে দীপক মিশ্র অবসর নেওয়ার পর তিনি সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি হন।

রঞ্জন গগৈয়ের স্ত্রী রূপাঞ্জলি গগৈ। তাদের দুই সন্তান রক্তিম এবং রেশমি। দুই সন্তানই আইনজীবী। রঞ্জন গগৈয়ের দাদা অঞ্জন গগৈ ভারতীয় বিমানবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত এয়ার মার্শাল।

নজিরবিহীনভাবে ২০১৮ সালের জানুয়ারিতে দিল্লিতে সাংবাদিক বৈঠক ডেকে যে চার জন বিচারপতি তৎকালীন প্রধান বিচারপতির বিরুদ্ধে সরব হয়েছিলেন, গগৈ তাদের অন্যতম। তার বিরুদ্ধেই আবার যৌন হেনস্থার অভিযোগ তুলেছিলেন শীর্ষ আদালতের এক মহিলা কর্মী। যদিও সেই অভিযোগ খারিজ হয়ে যায়।

 

/এইচকে/এএ/

x