ট্রাভেলগ কে বলেছে শপিং মল, এ তো এলাহী কাণ্ড!

রবিউল ইসলাম ২২:১৫ , অক্টোবর ১১ , ২০১৮

দেশের বাইরে বেড়াতে গিয়ে একটু-আধটু শপিং না করলে কী চলে! ভ্রমণপিপাসু সবাই ঘোরাঘুরির ফাঁকে ব্যাগভর্তি শপিং করেন। বিশেষ করে কেনাকাটার উপযোগী কোনও শহরে গেলে তো কথাই নেই! এই তালিকায় সবার ওপরে থাকতেই পারে সংযুক্ত আরব আমিরাতের দুবাই। এশিয়া কাপ কাভার করতে গিয়ে এই শহরে পা পড়েছিল আমার। তাই সেখানকার বিপণি বিতান দুবাই মল ঘুরে দেখার সুযোগ হাতছাড়া করিনি। ঘণ্টা দুয়েকের ঘোরাফেরায় যা দেখলাম, তাতে মনে হয়েছে এ তো এলাহী কাণ্ড!

৫০টি ফুটবল মাঠের সমান!
কে না জানে, উপভোগ্য কেনাকাটার জন্য দুবাই স্বর্গতুল্য। এর মধ্যে কতই না শুনেছি দুবাই মলের কথা। এবার নিজের চোখে দেখলাম। আয়তনের দিক থেকে এটি বিশ্বের সবচেয়ে বড় শপিং কমপ্লেক্স। ১১ লাখ ২৪ হাজার বর্গমিটার জায়গার ওপর সটান দাঁড়িয়ে আছে দুবাই মল। যা ৫০টি ফুটবল মাঠের সমান!

বাইরের উন্মুক্ত স্থান ও অন্যান্য অবকাঠামো বাদ দিলে দুবাই মলের অভ্যন্তরীণ আয়তন ৫ দশমিক ৯ মিলিয়ন বর্গফুট। এর মধ্যে বিভিন্ন আউটলেটের জন্য বরাদ্দকৃত জায়গার পরিমাণ হলো ৩ দশমিক ৭ মিলিয়ন বর্গফুট।

 

 

এমন বিশাল বিপণি বিতান একা ঘুরতে পুরো দুই দিন লেগে যাবে! আর ম্যাপ দেখে না চললে হারিয়ে যাওয়ার আশঙ্কা শতভাগ। আমারও তেমন অভিজ্ঞতা হচ্ছিল। তবে মলের ভেতরে গুরুত্বপূর্ণ মোড়গুলোতে রয়েছে ডিজিটাল ম্যাপ। এর মাধ্যমে আমার মতো অসংখ্য দর্শনার্থী সহজেই নিজেদের অবস্থান ও গন্তব্য জেনে নিয়েছেন দেখেছি।

কী নেই এখানে!
দুবাই শপিং মলে বিভিন্ন ব্র্যান্ডের মোট ১ হাজার ২০০টি আউটলেট রয়েছে। এক ভবনে আন্তর্জাতিক সব ব্র্যান্ডের সমাহার বললেই চলে আসে এই জায়গার নাম। কী নেই এখানে! বিখ্যাত সব ব্র্যান্ডের যাবতীয় পণ্যের পসরা দেখা গেলো। নামিদামি ডিজাইনারদের নজরকাড়া পোশাক চোখ এড়ায় কী করে! ইউরোপ-আমেরিকাসহ পশ্চিমা দুনিয়া থেকে অনেকে কেনাকাটার জন্য জড়ো হন মধ্যপ্রাচ্যের এই শহরে।

কেনাকাটা না করে বেড়ানো
দুবাই মলে ঢুকলে কেনাকাটা করতেই হবে এমন বাঁধাধরা নিয়ম নেই। আমি যেমন কিছু কিনিনি। শুধু ঘুরেছি। চোখ মেলে দেখেছি। যারা কেবল ঘুরে দেখতে চান, তাদের জন্যও এই শপিং মলের দুয়ার খোলা।

কেবল ঘুরে বেড়ানোই পরিকল্পনা থাকলে কোনও সমস্যা নেই। কেউই বাধা দেবে না। বরং হাসিমুখে দোকানিরা অভ্যর্থনা জানাবে। আমিও অনেকের অভ্যর্থনা পেয়েছি। একইসঙ্গে দোকানের বিভিন্ন পণ্যের বিস্তারিত বর্ণনা দিয়ে আকৃষ্ট করার চেষ্টা দেখেছি তাদের। সেই ফাঁদে পড়ে গেলে হয়তো টেরই পাবেন না কখন কী কিনে ফেলেছেন! তাতে অবশ্য খারাপ লাগবে না। দুবাই মলের সৌন্দর্যে মুগ্ধ হলে টাকার হিসাব রাখে কে!

দর্শনীয় অনেক কিছু
দুবাই মলে দর্শনীয় অনেক কিছুই আছে। পেছনের দিকে দেখবেন মনোরম ঝরনা। মন কেড়ে নেবে থিম পার্ক, পানির ফোয়ারা, বিশাল বরফ বল। আনন্দভ্রমণের জন্য রয়েছে আইস স্কেটিং, গেমিং জোন ও সিনেমা কমপ্লেক্স। আইস স্কেটিংয়ে পেঙ্গুইনদের দেখা মিলে যাবে।

বিশ্বের বৃহত্তম অ্যাক্রিলিক প্যানেল অ্যাকুয়ারিয়াম আছে দুবাই মলে। এর ওজন ২৪৫ টন! ভেতরে জীবন্ত সামুদ্রিক মাছ দেখতে অবশ্য কিছু পয়সা খরচ করতে হবে। ১৫০ দিরহামের বিনিময়ে আমি পেয়েছি সমুদ্রের তলদেশ সম্পর্কে বাস্তব ধারণা। এছাড়া সবসময়ই লাইভ মিউজিক ও ফ্যাশন শো’র মতো বিশেষ আয়োজন চলতে থাকে দুবাই মলে।

১০ হাজার বর্গফুটের মিষ্টির দোকান
বিশ্বের বৃহত্তম মিষ্টির দোকান ক্যান্ডিলিসিয়াস আছে দুবাই মলে। এর আয়তন ১০ হাজার বর্গফুট! সেখানে দুবাই মলে খাবার ও পানীয়র দোকান ১৬০টি। একপাশে খেয়াল করবেন ফুড কর্নার। বার্গারের স্বাদ নিতে চাইলে ম্যাকডোনাল্ড’স ও বার্গার কিংয়ের স্টাফরা তৈরি!

৪০ দিরহামের বিনিময়ে ঘুম
ঘুরে ঘুরে আর কেনাকাটার ক্লান্তিতে ঝিমুনি এসে গেলে চিন্তা নেই। ক্লান্ত পর্যটকদের কিছুক্ষণ ঘুমিয়ে নেওয়ার ব্যবস্থাও রেখেছে দুবাই মল কর্তৃপক্ষ। জনপ্রতি ৪০ দিরহামের বিনিময়ে অনেককে এই সেবা নিতে দেখলাম।

বছরে ৫ কোটি ৪০ লাখ দর্শনার্থী
প্রতি সপ্তাহে ৭ লাখ মানুষ কেনাকাটা করতে আসেন দুবাই মলে। সব মিলিয়ে প্রতি বছর সংখ্যাটা দাাঁড়ায় ৫ কোটি ৪০ লাখ। এর ফলে বিশ্বের সবচেয়ে বেশি দর্শনার্থীর পছন্দের শপিং কমপ্লেক্স হিসেবে রেকর্ড গড়েছে। শপিং মলটির নির্মাণ প্রতিষ্ঠান দুবাইয়ের এমার প্রোপার্টিজ কর্তৃপক্ষ এই তথ্য দিয়েছে।

জানুয়ারি-ফেব্রুয়ারিতে শপিং উৎসব
প্রতি বছর দু'বার জানুয়ারি-ফেব্রুয়ারিতে দুবাই মলে আয়োজন হয় এখানেই। তখন ইলেক্ট্রনিক্স, পোশাকসহ জনপ্রিয় সব পণ্যেই ছাড় থাকে। এছাড়া বছরের অন্যান্য সময়ে কোনও না কোনও ব্র্যান্ডের ছাড়ের অফার তো থাকেই।

দুবাই মলে লেখক১৪ হাজার গাড়ি পার্কিং
কেনাকাটা বা ঘুরে বেড়ানো শেষে ফেরার পথেও চমক থাকবে দুবাই মলে। সেখানে একসঙ্গে মোট ১৪ হাজার গাড়ি পার্ক করা যায়। গাড়ি সহজে খুঁজে বের করার জন্য প্রতিটি গাড়ি পার্কিং টিকিটের সঙ্গে রয়েছে কার লোকেটর। নিজের গাড়ি না থাকলেও সমস্যা নেই। পার্কিং সাইডে গিয়ে কোন ধরনের গাড়ি লাগবে বলা মাত্রই কয়েক সেকেন্ডের মধ্যে সামনে চলে আসবে! 







/জেএইচ/

x