বিশ্বের সবচেয়ে উঁচু লেক হচ্ছে নেপালের কাজিন সারা

ওয়াসিদ রাজা ১৫:৫৯ , আগস্ট ২২ , ২০১৯

কাজিন সারা লেকমানাং হারিয়ে দিচ্ছে মানাংকে! নেপালের শহরটি নতুনভাবে ইতিহাস লেখার অপেক্ষায়। বিশ্বের সবচেয়ে উঁচু লেক তিলিচোর অবস্থান এখানেই। তবে এবার এই মানাংয়েই সন্ধান মিলেছে আরও উচ্চতায় থাকা নতুন লেকের। সব ঠিক থাকলে বিশ্বের সবচেয়ে বেশি উচ্চতার লেকের স্বীকৃতি পেতে যাচ্ছে কাজিন সারা লেক।

মাসকয়েক আগে সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ৫ হাজার ২০০ মিটার ওপরে এই লেকের সন্ধান পাওয়া গেছে। পর্বতারোহীর একটি গ্রুপের ‘আবিষ্কৃত’ কাজিন সারা লেক মানাং শহরের চামি গ্রামে অবস্থিত। ধারণা করা হচ্ছে, এর দৈর্ঘ্য ১ হাজার ৫০০ মিটার, চওড়া ৬০০ মিটার। নির্দিষ্ট পরিমাপের পর সব মিলে গেলে এটাই হতে যাচ্ছে বিশ্বের সবচেয়ে উঁচুতে অবস্থিত লেক।

এখন পর্যন্ত তিলিচো লেককে সবচেয়ে উঁচু লেক হিসেবে বিবেচনা করা হয়। সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে এর অবস্থান ৪ হাজার ৯১৯ মিটার ওপরে। সেখানে প্রায় ৩০০ মিটার উঁচুতে কাজিন সারা লেকের অবস্থান। এখন লোকমুখে আলোচনায় থাকলেও কাজিন সারা লেক শিগগিরই আনুষ্ঠানিক স্বীকৃতি পেয়ে যাবে বলে আশা করা হচ্ছে।

কাজিন সারা লেকস্থানীয়রা মনে করেন, হিমালয়ের বরফ গলে কাজিন সারা লেকের জন্ম হয়েছে। এর পূর্ব দিকের কোলঘেঁষে রয়েছে মানাসলু, পশ্চিমে দামোদার, দক্ষিণে লামজাং ও অন্নপূর্ণা, আর উত্তরে রয়েছে পেরি। চামির লোকজনের আশা, বিশ্বের সবচেয়ে উঁচু লেকের স্বীকৃতি পেলে পর্যটকের ভিড় বাড়বে এখানে। তাতে মানাং ডিস্ট্রিক্টের আয়ও স্বাভাবিকভাবে বেড়ে যাবে বলে ধারণা করছে স্থানীয় প্রশাসন।

চামির মানাং ড্রিস্ট্রিক্ট হেডকোয়ার্টার থেকে পায়ে হেঁটে কাজিন সারা লেকে পৌঁছাতে লাগবে ১৮ ঘণ্টা। চামি থেকে এই জায়গার দূরত্ব ২৪ কিলোমিটারের মতো। প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের সঙ্গে রোমাঞ্চকর ভ্রমণে কাজিন সারা লেক দেখতে চাইলে জুলাই থেকে নভেম্বরের মধ্যে যাওয়াই ভালো।

তিলিচো লেকমানাংয়ে অবস্থিত বর্তমানে বিশ্বের সবচেয়ে উঁচু তিলিচো লেকের সৌন্দর্য উপভোগ করতে প্রতি বছর অসংখ্য ভ্রমণপ্রেমীর ভিড় জমে। সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ৪ হাজার ৯১৯ মিটার উঁচুতে অবস্থিত তিলিচো লেক লম্বায় ৪ কিলোমিটার আর চওড়ায় ১ দশমিক ২ কিলোমিটার। কাজিন সারা বিশ্বের সবচেয়ে বেশি উচ্চতার লেকের স্বীকৃতি পেলেও আয়তনের দিক থেকে এগিয়ে থাকবে তিলিচো।

তবে একটা জায়গা নড়চড় হচ্ছে না কোনোভাবেই। যাই ঘটুক, বিশ্বের সবচেয়ে উঁচু লেক থাকছে মানাংয়েই!

সূত্র: টাইমস অব ইন্ডিয়া

/জেএইচ/

x