১৩ বছরে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়

কুমিল্লা প্রতিনিধি ১৫:৩৯ , মে ২৯ , ২০১৮

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুবি) ১৩তম বছরে পদার্পণ উদযাপিত হয়েছে। সোমবার বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে আনন্দ শোভাযাত্রা ও সংক্ষিপ্ত সমাবেশ করে দিবসটি উদযাপন করেন বিশ্ববিদ্যালয় পরিবারের সদস্যরা।

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. এমরান কবির চৌধুরীর নেতৃত্বে শোভাযাত্রাটি প্রশাসনিক ভবনের সামনে থেকে শুরু হয়ে ক্যাম্পাসের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাস্কর্যের সামনে এসে শেষ হয়। শোভাযাত্রা শেষে এক সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে উপাচার্য বলেন, ‘কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভবিষ্যৎ খুবই উজ্জ্বল। অতীতে কি হলো, কি হয়নি তা দেখতে চাই না। সবার সম্মিলিত প্রচেষ্টায়ই সামনে এগিয়ে যাওয়া সম্ভব।’ এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের সিন্ডিকেট সদস্য ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের পদার্থবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক ড. এ. কে. এম. মাঈনুল হক মিয়াজী, রেজিস্ট্রার (চলতি দায়িত্ব) ড. মো. আবু তাহের, বিভিন্ন অনুষদের ডিন, প্রক্টরিয়াল বডি, হলের প্রাধ্যক্ষবৃন্দ, শিক্ষক নেতৃবৃন্দ, বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষক-শিক্ষার্থীবৃন্দ, কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ, শাখা ছাত্রলীগের নেতৃবৃন্দ প্রমুখ।

উল্লেখ্য, কুমিল্লা শহর থেকে ১১ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে কোটবাড়ী শালবন বিহার এবং ময়নামতি জাদুঘর সংলগ্ন কুমিল্লার বিখ্যাত লালমাই পাহাড়ের পাদদেশে ২০০৬ সালের ২৮ মে প্রতিষ্ঠিত হয় দেশের ২৬তম এই পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়টি। এর ঠিক এক বছর পরেই (২৮ মে ২০০৭) মাত্র ৭টি বিভাগে ৩০০ শিক্ষার্থী ও ১৫ জন শিক্ষক নিয়ে শুরু হয় বিশ্ববিদ্যালয়টির অ্যাকাডেমিক কার্যক্রম। মধ্য-পূর্বাঞ্চলের সর্বোচ্চ এ বিদ্যাপীঠে বর্তমানে ৬টি অনুষদের অধীনে ১৯টি বিভাগে প্রায় সাড়ে ছয় হাজার শিক্ষার্থী অধ্যয়ন করছেন। ইতোমধ্যে বিভিন্ন বিভাগের ৬টি ব্যাচ শিক্ষাকার্যক্রম শেষ করেছে।

/এফএএন/এমওএফ/

x