ছয় বছরে ৩১ লাখ পর্যটক বাংলাদেশ ভ্রমণ করেছেন: সংসদে মন্ত্রীর তথ্য

বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট ১৫:২০ , জুন ১৯ , ২০১৭

জাতীয় সংসদগত ছয় বছরে (২০১০-১৫) ৩১ লাখ ২২ হাজার ৭৫৬ জন বিদেশি পর্যটক বাংলাদেশ ভ্রমণ করেছেন বলে জাতীয় সংসদকে জানিয়েছেন বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটনমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন। সরকারদলীয় সংসদ সদস্য সামশুল হক চৌধুরীর প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী এ তথ্য জানান। স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সোমবার (১৯ জুন) প্রশ্নোত্তর টেবিলে উত্থাপিত হয় ওই প্রশ্ন।
জাতীয় সংসদে দেওয়া মন্ত্রীর তথ্য অনুযায়ী, ২০১৩ সালে সবচেয়ে কমসংখ্যক বিদেশি পর্যটক বাংলাদেশ ভ্রমণ করেন। ওই বছর ২ লাখ ৭৭ হাজার ৫৯৬ জন বাংলাদেশ ভ্রমণ করেছেন। আর সবচেয়ে বেশি বিদেশি পর্যটক বাংলাদেশ ভ্রমণ করেন ২০১৫ সালে, ৬ লাখ ৪৩ হাজার ৯৪ জন।
সরকারদলীয় সংসদ সদস্য মাহফুজুর রহমানের প্রশ্নের জবাবে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী বলেন, ‘সারাদেশের অসচ্ছল মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য আট হাজার ফ্ল্যাট নির্মাণের একটি প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়েছে। মুক্তিযোদ্ধার সংখ্যানুপাতে প্রতিটি জেলা-উপজেলায় বহুতল ভবন নির্মাণ করা হবে।’
বেগম খোরশেদ আরা হকের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী জানান, প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধা নির্ণয়ের জন্য ৪৭০টি যাচাই-বাছাই কমিটি গঠন করা হয়েছে। এ কমিটি নির্দেশিকার আলোকে যাচাই-বাছাই চলছে। এর প্রতিবেদন পাওয়া গেলে তাদের নামের গেজেট প্রকাশ হবে, দেওয়া হবে।
বেগম উম্মে রাজিয়া কাজলের এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, ‘স্বাধীনতাবিরোধী রাজাকার, আলবদর, আলশামসদের বিরুদ্ধে ঘৃণা প্রকাশের জন্য একটি ঘৃণাস্তম্ভ তৈরির পরিকল্পনা সরকারের রয়েছে।’
জাতীয় পার্টির এ কে এম মাঈদুল ইসলামের প্রশ্নের পরিবেশ ও বনমন্ত্রী আনোয়ার হোসেন মঞ্জু জানান, সারাদেশে বর্তমানে ছয় হাজার ৭৪০টি ইটভাটা রয়েছে। এর মধ্যে চার হাজার ৯৯০টি ইটভাটা পরিবেশগত ছাড়পত্র গ্রহণ ও নবায়ন করেছে। এছাড়া, ছাড়পত্র ছাড়াই চলছে এক হাজার ৭৫০টি ইটভাটা।
সরকারী দলের এম আবদুল লতিফের প্রশ্নের জবাবে ভূমিমন্ত্রী সংসদকে জানান, বর্তমান সরকারের বিগত ও চলতি মেয়াদে ১৮ হাজার ২৭টি ভূমিহীন পরিবারের অনুকূলে ৯৯ হাজার ৯৩১ দশমিক ৬২ একর কৃষি খাসজমি বন্দোবস্ত দেওয়া হয়েছে। এই সংসদ সদস্যের অন্য এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী জানান, বর্তমানে সারাদেশে ছয় হাজার ৬৮ দশমিক ৪৭ একর পরিত্যক্ত সম্পত্তি রয়েছে।

আরও পড়ুন-

সংসদে তোপের মুখে অর্থমন্ত্রী, কম কথা বলার পরামর্শ

অনলাইন গণমাধ্যম নীতিমালায় মন্ত্রিপরিষদের অনুমোদন

/ইএইচএস/টিআর/

x