প্রিয়া সাহা ইস্যুতে পররাষ্ট্র সচিবের কাছে যুক্তরাষ্ট্রের অবস্থান ব্যাখ্যা করলেন রাষ্ট্রদূত

বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট ২৩:৫১ , জুলাই ২৩ , ২০১৯

পররাষ্ট্র সচিব ও যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত

প্রিয়া সাহা ইস্যুতে পররাষ্ট্র সচিব এম শহীদুল হকের কাছে যুক্তরাষ্ট্রের অবস্থান ব্যাখ্যা করেছেন ঢাকায় দেশটির রাষ্ট্রদূত আর্ল রবার্ট মিলার। মঙ্গলবার (২৩ জুলাই) বিকালে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে আয়োজিত এক অনির্ধারিত বৈঠকে এ ইস্যুতে নিজ দেশের অবস্থান তুলে ধরেন রবার্ট মিলার।

পররাষ্ট্র সচিব চার দিনের লন্ডন সফরের পর আজ মঙ্গলবার ঢাকায় ফেরেন।  

মন্ত্রণালয়ের একটি সূত্র জানান, ঢাকায় ফিরেই যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূতকে পররাষ্ট্র সচিব এ বিষয়ে কথা বলার জন্য ডেকে পাঠান। অফিস সময়ের পর এই অনির্ধারিত বৈঠকটি অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকে প্রিয়া সাহা ইস্যুতে উভয়ের কথা হয়।

তবে প্রায় ঘণ্টাব্যাপী বৈঠক শেষে বের হয়ে গণমাধ্যমের সঙ্গে কোনও কথা বলেননি রাষ্ট্রদূত মিলার। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকেও আনুষ্ঠানিকভাবে গণমাধ্যমকে কিছু জানানো হয়নি।

এর আগে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছিল, যুক্তরাষ্ট্রে অনুষ্ঠিত ধর্মীয় স্বাধীনতা বিষয়ক মন্ত্রী পর্যায়ের সম্মেলনে প্রিয়া সাহার মতো অতিথিকে আমন্ত্রণ করায় খুশি নয় বাংলাদেশ।

ওই সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানায়, ‘বাংলাদেশ সরকার আশা করে এ ধরনের বড় আন্তর্জাতিক অনুষ্ঠানের আয়োজকরা বিবেচক ব্যক্তিদের আমন্ত্রণ জানাবেন, যারা সত্যিকার অর্থে ধর্মীয় স্বাধীনতাকে উৎসাহিত করবে।’

উল্লেখ্য, গত ১৬-১৮ জুলাই ওয়াশিংটনে স্টেট ডিপার্টমেন্টে ধর্মীয় স্বাধীনতা বিষয়ক মন্ত্রী পর্যায়ের একটি সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। এ সম্মেলনে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের মতো বাংলাদেশ থেকেও অনেককে আমন্ত্রণ করা হয়েছিল, যার মধ্যে প্রিয়া সাহাও ছিলেন।

যুক্তরাষ্ট্র সরকার শুধু প্রিয় সাহাকে আমন্ত্রণই জানায়নি, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের সঙ্গে যে ক্ষুদ্র প্রতিনিধি দল দেখা করেছে তার মধ্যেও তাকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।

প্রিয়া সাহা প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পকে বলেন, মুসলিম উগ্রবাদীরা তার জমি দখল করে নিয়েছে এবং তিনি প্রেসিডেন্টের সহায়তা চান যাতে করে হিন্দু, বৌদ্ধ ও খ্রিস্টানরা বাংলাদেশে থাকতে পারে।

তার এই মন্তব্যের পরে সরকার এবং বিভিন্ন স্তরের মানুষ তীব্র প্রতিবাদ জানায়। প্রিয়া সাহার বিরুদ্ধে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় মামলা দায়েরের চেষ্টা করা হলেও সেতুমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের জানান, সরকার আগে প্রিয়া সাহার বক্তব্য শুনতে চায়। তাই তার বিরুদ্ধে কোনও মামলা করতে হলে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে অনুমতি নিতে হবে। এরপর স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন না পাওয়ায় কোথাও তার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের হয়নি। 

/এসএসজেড/টিএন/এমএমজে/

x