১৩ জেলার সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ছুটি বাতিল

বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট ২০:৩৪ , নভেম্বর ০৮ , ২০১৯






ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের যাত্রাপথঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’ মোকাবিলায় দেশের ঘূর্ণিঝড়প্রবণ ১৩ জেলার সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের শনিবার (৯ নভেম্বর) ও রবিবারের (১০ নভেম্বর) ছুটি বাতিল করা হয়েছে। একইসঙ্গে কর্মস্তল ত্যাগ না করার জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। ঘূর্ণিঝড় মোকাবিলায় নাগরিকদের নিরবচ্ছিন্ন সহযোগিতা করার জন্য সরকার এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে। শুক্রবার (৮ নভেম্বর) সন্ধ্যায় জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী মো. ফরহাদ হোসেন বাংলা ট্রিবিউনকে এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় এ সংক্রান্ত আদেশ জারি করে সংশ্লিষ্ট জেলা প্রশাসকদের এই নির্দেশনা বাস্তবায়নের জন্য বলেছে।
সংশ্লিষ্ট জেলাগুলো হলো— সাতক্ষীরা, বাগেরহাট, পটুয়াখালী, ভোলা, বরগুনা, পিরোজুপর, নেয়াখালী, ফেনী, লক্ষ্মীপুর, খুলনা, চাঁদপুর, কক্সবাজার ও চট্টগ্রাম।

প্রতিমন্ত্রী মো. ফরহাদ হোসেন বলেন, ‘ঘূর্ণিঝড়ে যেন ক্ষয়ক্ষতি কম হয়, সেজন্য আমরা ঘূর্ণিঝড়প্রবণ ১৩ জেলার সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ছুটি বাতিল করেছি। আমরা সার্বক্ষণিক স্থানীয় প্রশাসনের সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা করছি। তাদের কাছ থেকে ঘূর্ণিঝড় পরিস্থিতির সর্বশেষ অবস্থার খবর নিচ্ছি। স্থানীয় প্রশাসন আমাদের সবকিছু জানাচ্ছে, আমরা সেই অনুযায়ী ব্যবস্থা নিচ্ছি। যেন জান-মালের ক্ষয়ক্ষতি না হয়, সেজন্য সর্বোচ্চ চেষ্টা করা হচ্ছে। সবাই মিলে দুর্যোগ মোকাবিলা করবো।’

আবহাওয়া অফিস জানায়, পূর্ব-মধ্য বঙ্গোপসাগর ও এর আশপাশের এলাকায় অবস্থানরত ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’ আরও উত্তর ও উত্তর-পশ্চিম দিকে অগ্রসর হয়ে একই এলাকায় অবস্থান করছে। শনিবার সন্ধ্যায় এটি বাংলাদেশের উপকূলীয় অঞ্চলে আঘাত হানতে পারে।

জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সহকারী সচিব এস এম শাহীন স্বাক্ষরিত আদেশে বলা হয়, ঘুর্ণিঝড় ‘বুলবুল’ সৃষ্ট পরিস্থিতি মোকাবিলার প্রস্তুতিসহ পরবর্তী প্রয়োজনীয় সব কার্যক্রম গ্রহণের জন্য ঘূর্ণিঝড় প্রস্তুতি কর্মসূচি (সিপিসি) বাস্তবায়ন বোর্ডের ২০১৯ সালের ৮ নভেম্বরের সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী সংশ্লিষ্ট জেলার সব সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীর ৯ নভেম্বর সাপ্তাহিক ছুটি এবং ১০ নভেম্বর সরকারি ছুটি বাতিলসহ কর্মস্থল ত্যাগ না করার সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের জন্য নির্দেশক্রমে অনুরোধ করা হলো।

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, শুক্রবার (৮ নভেম্বর) সচিবালয়ে মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির জরুরি বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। বৈঠকের সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় এই নির্দেশনা জারি করে।


এদিকে, পানি উন্নয়ন বোর্ড সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ছুটি বাতিল করে নিজ নিজ কর্মস্থলে অবস্থান করার ঘোষণা দিয়েছে।

প্রসঙ্গত, আওহাওয়া অধিদফতর থেকে পায়রা সমুদ্র বন্দর ও মোংলা সমুদ্র বন্দরকে ৭ নম্বর বিপদ সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে। আর চট্টগ্রাম সমুদ্র বন্দর এলকায় ৬ নম্বর বিপদ সংকেত এবং কক্সবাজার সমুদ্র বন্দরকে ৪ নম্বর স্থানীয় হুঁশিয়ারি সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে।

অন্যদিকে, বিআইডব্লিউটি সারাদেশে নৌ পরিবহন চলাচল বন্ধ ঘোষণা করেছে।








 

/এআরআর/এসএমএ/এসআই/এনআই/এমএনএইচ/

x