‘ডিএনসিসি’র খুলে নেওয়া বাঁশের খোঁজ পাইনি’

বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট ১৭:৫৮ , জানুয়ারি ১৪ , ২০১৮

জাতীয় প্রেসক্লাবে কুতুববাগ দরবার শরীফের সংবাদ সম্মেলন
আগামী ২৫ ও ২৬ জানুয়ারি নারায়ণগঞ্জের বন্দর থানাধীন কুতুববাগ দরবার শরীফে ওরস পালন করা হবে বলে জানিয়েছেন দরবার শরীফের কমান্ডার ইন চিফ অ্যাডভোকেট মির্জা মাহবুব সুলতান বাচ্চু। রবিবার বিকেলে জাতীয় প্রেসক্লাবের কনফারেন্স লাউঞ্জে এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানান তিনি । এ সময় ঢাকায় ওরস করতে না পারার প্রেক্ষাপট তুলে ধরে ডিএনসিসি তাদের গেট বানানোর বাঁশগুলো খুলে নিয়ে আর ফেরত দেয়নি সে দাবিও করেন তিনি।  

তিনি বলেন, প্রশাসনিক অনুমতির পরিপ্রেক্ষিতেই আমরা ফার্মগেটে প্রস্তুতি নিয়েছিলাম। কিন্তু সেখান থেকে আমাদের আগে না জানিয়েই বাঁশ খুলে ফেলা হয়। এরপর আমরা কোনও প্রতিবাদ না করেই আমাদের আয়োজন সরিয়ে নারায়ণগঞ্জ নিয়ে গেছি। এমনকি ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি) কর্তৃপক্ষ আমাদের বাঁশগুলো নিয়ে গেছেন সেগুলোরও কোনও খোঁজ পাইনি। আপনাদের প্রতি আহবান ওরস এর মতো ভালো কাজে বাধা দিয়েন না ।

বাচ্চু বলেন,  প্রতি বছর কুতুববাগ দরবার শরীফের মহান দরদী পীরের  আলহাজ হজরত মাওলানা কুতুবুদ্দিন আহমদ খান মাতুয়াইলির বেছালত উপলক্ষে বার্ষিক মহাপবিত্র ওরস এবং বিশ্ব জাকের ইজতেমা আয়োজন করে থাকে। দুদিন ব্যাপী এই মহতী সম্মেলনে ওয়াজ নসিহত, শরিয়ত, তরিকত, হকিকত ও ইলমে মারেফত সম্পর্কে প্রখ্যাত ওলামায়ে কেরামগণ আলোচনা করবেন। ফাতেহা শরীফের মধ্য দিয়ে ২৫ জানুয়ারি ফজর হতে বিরতিহীনভাবে ওরস চলবে। পরদিন ২৬ জানুয়ারি শুক্রবার জুমার নামাজ শেষে আখেরি মোনাজাতের মাধ্যমে শেষ হবে।
উল্লেখ্য যে, যানজটসহ জনভোগান্তির কথা চিন্তা করে রাজধানীর ফার্মগেটের ইন্দিরা রোড ও খামারবাড়ির মাঝখানে অবস্থিত শহীদ আনোয়ারা পার্কে আর কোনও ওরস করতে না দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি)। এ কারণে এবছর ওই স্থানে আগামী জানুয়ারিতে তিনদিনের জন্য ওরস করার অনুমতি চাইলেও কুতুববাগ কর্তৃপক্ষকে স্পষ্ট জানিয়ে দেওয়া হয়েছে তারা আর কোনও অনুমতি পাবে না।
গত ২৫ বছর ধরে এই স্থানটিতে বার্ষিক ওরসের আয়োজন করে আসছে কুতুববাগ দরবার শরীফ। এতে ওই এলাকায় যানজটসহ জনসাধারণের ভোগান্তি দেখা দেয়। নষ্ট হয় পার্কটির পরিবেশ। কুতুববাগ দরবার শরীফের এই আয়োজনকে ঘিরে মাসব্যাপী চলে নানা কর্মযজ্ঞ। ওরসের জন্য সাজানো মঞ্চ, আলোকসজ্জা ও দান হিসেবে আসা পশু রাখার কারণে জনদুর্ভোগ বাড়ে। স্থানীয়দের অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে গতবছর এই আয়োজনে হস্তক্ষেপ করেছিলেন ডিএনসিসির প্রয়াত মেয়র আনিসুল হক।

/এসও/টিএন/

x