বিআরটিএ’তে দুদকের অভিযান, পালালো দালাল

বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট ০৩:৩৫ , জুলাই ১২ , ২০১৮

হটলাইনে আসা অভিযোগের ভিত্তিতে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআরটিএ) ইকুরিয়া কার্যালয়ে বুধবার (১১ জুলাই) অভিযান চালিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। দুদকের সদস্যদের উপস্থিতি টের পেয়ে পালিয়ে যায় কার্যালয়ের ভেতরে অবস্থান করা দালালরা। দুদক সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

জানা যায়, প্রায় পাঁচ ঘণ্টা চলে দুদকের এ অভিযান চলে। এসময় পুরাতন ও অচল হওয়া মিশুক (এক ধরনের  যানবাহন) বেআইনিভাবে সিএনজি করার প্রক্রিয়া হাতেনাতে ধরেন দুদক কর্মকর্তারা।

দুদকের জনসংযোগ কর্মকর্তা প্রণব কুমার জানান, হটলাইন ১০৬-এ আসা অভিযোগের পর দুদকের উপপরিচালক খায়রুল হুদার নেতৃত্বে পুলিশসহ ৯ সদস্যের একটি টিম বিআরটিএ ইকুরিয়া কার্যালয়ে আকস্মিক অভিযান চালায়। এসময় দালালরা পালিয়ে যায়। 

সরেজমিনে অভিযান পরিচালনাকারী টিমের সদস্যরা দেখতে পান, ২০০২ সালের আগের পুরাতন ও অচল হওয়া অসংখ্য মিশুক বেআইনিভাবে সিএনজিকরণ প্রক্রিয়া চলছে। সেখানে আনা বেশকিছু মিশুকে ফেব্রিকেটেড চেসিস নাম্বার লাগানো হয়েছে, যা রেজিস্ট্রেশন করার জন্য আনা হয়েছিল।

প্রণব কুমার আরও জানান, অনিয়ম দেখে দুদক টিম তাৎক্ষণিক এই বেআইনি কার্যক্রম বন্ধ করে দেয়। এছাড়াও দুদক টিমের উপস্থিতিতে রেজিস্ট্রেশন ও লাইসেন্সপ্রাপ্তির জন্য দীর্ঘক্ষণ অপেক্ষায় থাকা ৮টি যানবাহন পরীক্ষা করে তাৎক্ষণিক ফিটনেস প্রদান করা হয়।

দুদক কর্মকর্তাসহ অভিযানে অংশ নেওয়া সদস্যরা জনসচেতনতার তৈরি জন্য বিআরটিএ ইকুরিয়া কার্যালয়ে দুর্নীতিবিরোধী স্টিকার ও লিফলেট বিতরণ করেন এবং মাইকিং করে যে কোনও  দুর্নীতি-হয়রানি তাৎক্ষণিকভাবে দুদক হটলাইন ১০৬-এ কল করে জানানোর অনুরোধ করেন।   

দুদকের এনফোর্সমেন্ট অভিযানের সমন্বয়কারী মহাপরিচালক (প্রশাসন) মোহাম্মদ মুনীর চৌধুরী জানান, বিআরটিএ’কে অবশ্যই দুর্নীতির কবল থেকে মুক্ত করে নির্বিঘ্ন সেবাপ্রদান নিশ্চিত করতে  হবে। বিআরটিএ কর্তৃপক্ষ নিজেদের অফিস দালালমুক্ত না করলে কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে দুদক কঠোর পদক্ষেপ নিতে বাধ্য হবে। 

 

 

/আরজে/এএইচ/

x