বিআরটিএ’র ভ্রাম্যমাণ আদালত: ২১৫ মামলা ও জরিমানা

বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট ২২:০২ , সেপ্টেম্বর ১৪ , ২০১৮

বিআরটিএবিআরটিএ’র নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটরা ১০টি ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালানা করে ২১৫টি মামলায় ৪ লাখ ৩৪ হাজার ৮০০ টাকা জরিমানা আদায় করেছেন। ১৭টি মোটরযানের কাগজপত্র জব্দ ও ৭টি মোটরযান ডাম্পিং স্টেশনে পাঠিয়েছেন। মোটরযান অধ্যাদেশ ১৯৮৩ অনুযায়ী এসব দণ্ড দেওয়া হয়।

বৃহস্পতিবার (১৩ সেপ্টেম্বর) সকাল ১০টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত ঢাকার মহাখালী, ফার্মগেট, সায়েদাবাদ জনপথের মোড়, প্রধান বিচারপতির বাস ভবন এলাকায়, বিআরটিএ ইকুরিয়া, বিআরটিএ মিরপুর, বিআরটিএ উত্তরা, সাভারের নবীনগর ও চট্টগ্রাম মহানগরীতে এই ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হয়। বিআরটিএ’র (বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটি) পরিচালক (এনফোর্সমেন্ট) নুর মোহাম্মদ মজুমদার এসব তথ্য জানিয়েছেন।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. মুনিবুর রহমানের নেতৃত্বে উত্তরা বিআরটিএ অফিসে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হয়। বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগে ৮টি মামলায় ১৮ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. মাজহারুল ইসলামের নেতৃত্বে সায়েদাবাদ জনপথের মোড় এলাকায় ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হয়। বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগে ২৬টি মামলায় ৮৮ হাজার ৫শ টাকা জরিমানা আদায় ও তিনটি মোটরযানের কাগজপত্র জব্দ করা হয়।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. নাজমুল ইসলামের নেতৃত্বে বিআরটিএ মিরপুর অফিসে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হয়। বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগে ১৩টি মামলায় ৩২ হাজার ৯শ টাকা জরিমানা আদায় করা হয়।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. সাখাওয়াত হোসেনের নেতৃত্বে সাভারের নবীনগর এলাকায় ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হয়। বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগে ২৩টি মামলায় ৩৯ হাজার ২শ টাকা জরিমানা আদায় ও  চারটি মোটরযানের কাগজপত্র জব্দ করা হয়।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ আব্দুর রহিম সুজনের নেতৃত্বে প্রধান বিচারপতির বাসভবন এলাকায় ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হয়। বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগে ৩২টি মামলায় ৬৬ হাজার ৯শ টাকা জরিমানা আদায় করা হয়।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারাহ সাদিয়া তাজনিনের নেতৃত্বে ফার্মগেট এলাকায় ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হয়। বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগে ২৮টি মামলায় ১৮হাজার ৭শ টাকা জরিমানা আদায় করা হয়।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ফয়সাল আহমেদের নেতৃত্বে মহাখালী এলাকায় ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হয়। বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগে ২০টি মামলায় ৯হাজার ৭শ টাকা জরিমানা আদায় করা হয়।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এ. এফ. এম. ফিরোজ মাহমুদের নেতৃত্বে দক্ষিণ কেরানীগঞ্জের বিআরটিএ ইকুরিয়া এলাকায় ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হয়। বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগে ১১টি মামলায় ১৭ হাজার ২শ টাকা জরিমানা আদায় করা হয়।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. জিয়াউল হক মীরের নেতৃত্বে চট্টগ্রাম মহানগর সিমেন্ট ক্রসিং এলাকায় ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হয়। বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগে ১৮টি মামলায় ৪৩হাজার ৩শ টাকা জরিমানা আদায়, ৭টি মোটরযান ডাম্পিং স্টেশনে এবং ৮টি মোটরযানের কাগজপত্র জব্দ করা হয়।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এস, এম, মনজুরুল হক এর নেতৃত্বে চট্টগ্রাম মহানগরীর মইজ্জার টেক এলাকায় ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হয়। বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগে ৩৬টি মামলায় ১ লাখ ৪শ টাকা জরিমানা আদায় ও দুইটি মোটরযানের কাগজপত্র জব্দ করা হয়।

 

/এনআই/

x