‘আত্মহত্যা বিষয়ক রিপোর্টিংয়ের ক্ষেত্রে দায়িত্বশীল হওয়া প্রয়োজন’

বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট ১৬:১১ , অক্টোবর ১১ , ২০১৮





বক্তব্য রাখছেন ডা. মুহিত কামালগণমাধ্যমকে আত্মহত্যা বিষয়ক রিপোর্টিংয়ের ক্ষেত্রে দায়িত্বশীল হওয়া প্রয়োজন। দায়িত্বশীল রিপোর্টিং পাঠকের মধ্যে আত্মহত্যার প্রবণতা কমাতে সাহায্য করবে। বৃহস্পতিবার (১১ অক্টোবর) ‘গণমাধ্যমে আত্মহত্যা বিষয়ক সংবাদ প্রকাশের ক্ষেত্রে দায়িত্বশীলতা’ শীর্ষক কর্মশালায় এ একথা বলেন জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউটের সাইকিয়াট্রি বিভাগের অধ্যাপক ডা. মো. আব্দুল মোহিত কামাল।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (হু) সহায়তায় জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউটের উদ্যোগে নিজস্ব মিলনায়তনে কর্মশালাটি অনুষ্ঠিত হয়।

ডা. মোহিত কামাল বলেন, ‘বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা আত্মহত্যা প্রতিরোধের জন্য আত্মহত্যার সংবাদ কী ধরনের হওয়া উচিত, তার একটি গাইডলাইন তৈরি করেছে। সব গণমাধ্যম এই গাইডলাইন মেনে চললেই আত্মহত্যা প্রতিরোধে কাজ করা হবে।’

‘আত্মহত্যার সংবাদ কেমন হওয়া উচিত’ শীর্ষক বক্তব্যে জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউটের সহযোগী অধ্যাপক ডা. হেলাল উদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘আত্মহত্যার সংবাদটি প্রথম পৃষ্ঠায় বা অন্যত্র খুব গুরুত্বপূর্ণ জায়গায় প্রকাশ করা যাবে না। শিরোনামে এমন কোনও শব্দ বা বাক্যরীতি ব্যবহার করা উচিত নয়, যা পাঠককে উদ্দীপনার খোরাক দেয়। শিরোনাম সংক্ষিপ্ত হওয়া উচিত। শিরোনামে যেন এমন বার্তা না থাকে, যাতে মনে হয় আত্মহত্যা কোনও সমস্যার সমাধান। আত্মহত্যার বিবরণ যেন না থাকে, কোনও ছবি বা ফুটেজ যেন প্রকাশিত না হয়, সেলিব্রেটিদের আত্মহত্যার খবর দ্বিগুণ সতর্কতার সঙ্গে পরিবেশন করতে হবে।’
আত্মহত্যার ঝুঁকি ও প্রতিরোধ প্রসঙ্গে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) অধ্যাপক ডা. ঝুনু শামসুন নাহার বলেন, ‘যে আত্মহত্যা করতে চায় সে আগেই জানায় সে আত্মহত্যা করবে। আমরা যদি তখনই তার পাশে দাঁড়াই, প্রতিরোধের উদ্যোগ নিই, তাহলে এটি প্রতিরোধ করা সম্ভব। ’
কর্মশালায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন ইনস্টিটিউটের পরিচালক অধ্যাপক ডা. মো. ফারুক আলম। আত্মহত্যা নিয়ে রিপোর্টিং প্রসঙ্গে বক্তব্য রাখেন হু’র মানসিক স্বাস্থ্য বিষয়ক কনসালটেন্ট হাসিনা মমতাজ প্রমুখ।

/টিওয়াই/এপিএইচ/এমওএফ/

x