ডাচ-বাংলা ও ব্র্যাকের এটিএম বুথ বন্ধ, বিপাকে গ্রাহকরা

বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট ১৬:০৭ , মার্চ ১৫ , ২০১৯

বুথে এসে টাকা তুলতে পারেননি গ্রাহকরাসিস্টেম আপগ্রেডের জন্য বৃহস্পতিবার (১৪ মার্চ) মধ্যরাত থেকে এটিএম বুথের কার্যক্রমসহ লেনদেন বন্ধ রেখেছে বেসরকারি বাণিজ্যিক ব্যাংক ব্র্যাক ও ডাচ-বাংলা। কিন্তু বিষয়টি গ্রাহকদের অনেকেই জানেন না। এ কারণে টাকা উত্তোলন করতে গিয়ে বিপাকে পড়েছেন তারা। খালি হাতেই বুথের সামনে থেকে ফিরে যেতে হচ্ছে তাদের। গ্রাহকরা বলছেন, ব্যাংক কর্তৃপক্ষের ব্যাপকহারে প্রচারণা না থাকায় তাদেরকে এই ভোগান্তিতে পড়তে হয়েছে। অপরদিকে ব্যাংকগুলো বলছে তারা গ্রাহকদের মোবাইলফোনে এসএমএস ও পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের মাধ্যমে ব্যাংকিং লেনদেন বন্ধের তথ্য জানিয়েছি।

গণমাধ্যমে প্রকাশিত বিজ্ঞপ্তি থেকে জানা যায়, প্রযুক্তিগত উন্নয়নের জন্য বৃহস্পতিবার রাত ১০টা থেকে আগামী ৫০ ঘণ্টা সব ধরনের লেনদেন বন্ধ রাখবে ব্র্যাক ব্যাংক। অন্যদিকে একই দিন রাত ১২টা ১ মিনিট থেকে ১৯ মার্চ মঙ্গলবার সকাল ৬টা পর্যন্ত ডাচ-বাংলা ব্যাংকের সকল শাখা, এটিএম বুথসহ পিওএস এবং এজেন্ট ব্যাংকিংয়ের কার্যক্রম বন্ধ থাকবে।

শুক্রবার সকালে নগরীর বিভিন্ন এলাকায় অবস্থিত ব্যাংক দু’টির এটিএম বুথ ঘুরে দেখা গেছে সব ধরনের লেনদেন বন্ধ রয়েছে। এতে অনেক গ্রাহক টাকা উত্তোলন করতে এসে বিপাকে পড়েছেন। টাকা উত্তোলন না করেই খালি হাতে ফিরতে হচ্ছে তাদের। এসব গ্রাহকের দাবি, তারা লেনদেন বন্ধের বিষয়ে কিছু জানেন না। ব্যাংকের পক্ষ থেকে সেভাবে তাদেরকে জানানো হয়নি। তারা বুথগুলোর সামনে থাকা নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা কর্মীদেরকে নানা প্রশ্নের উত্তর দিতে হয়।

সকালে শাহজাহানপুর ডাচ বাংলা ব্যাংকের এটিএম বুথে গিয়ে দেখা গেছে- বুথটির দরজা খোলা থাকলেও এটিএম সেবা বন্ধ রয়েছে। বুথের নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা আফজাল বারী বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘বুথ বন্ধ রয়েছে। গতকাল রাত থেকে মঙ্গলবার পর্যন্ত টাকা তোলা যাবে না। তবে চেক বইয়ের মাধ্যমে ব্যাংকের শাখা থেকে টাকা তোলা যাবে।’

ডাচ বাংলা ব্যাংক বুথতিনি আরও বলেন, ‘প্রতিদিনের মতো টাকা তোলার জন্য সকাল থেকে অনেক লোক এসেছেন। অনেকেই বিষয়টি না জেনে চলে এসেছেন। এখন টাকা তুলতে পারছেন না।’

তিনি বলেন, ‘গ্রাহকদেরকে বলে দেওয়ার জন্য ব্যাংক থেকে আমাদেরকেও জানিয়ে দেওয়া হয়েছে। গত কয়েকদিন ধরে আমরাও তাদেরকে বলেছি। কিন্তু সবাইতো জানেন না।’

বুথ থেকে টাকা উত্তোলনের জন্য স্ত্রীকে সঙ্গে নিয়ে এসেছিলেন পুলিশ কর্মকর্তা আব্দুর রাজ্জাক। তবে তিনি টাকা তুলতে পারেননি। বাংলা ট্রিবিউনকে আব্দুর রাজ্জাক বলেন, ‘আজ শুক্রবার থাকায় স্ত্রীকে সঙ্গে নিয়ে কেনাকাটা করতে বের হয়েছি। এখন দেখি বুথ বন্ধ। হাতেও কোনও টাকা রাখিনি। এখন কি করবো?’

তিনি বলেন, ‘যদি ব্যাংক থেকে গ্রাহকদেরকে ফোন করে বলে দেওয়া হতো তাহলে এই ভোগান্তিতে পড়তে হতো না।’

ব্র্যাক ব্যাংকের বুথেও লেনদেন বন্ধ ছিলএকই অবস্থা দেখা গেছে ব্র্যাক ব্যাংকের এটিএম বুথেরও। দুপুরে পান্থপথের স্কয়্যার হাসপাতাল সংলগ্ন এটিএম বুথে গিয়ে দেখা গেছে সেবা বন্ধ রয়েছে। বুথটিতে নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা কোনও কর্মীকেও পাওয়া যায়নি। এসময় রাজিবুল হক নামে একজন গ্রাহক টাকা উত্তোলন করতে এসে ফিরে গেছেন। তিনি বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘ব্যাংকের সেবা বন্ধ থাকার বিষয়ে জানা ছিল না। আমার সব টাকা অ্যাকাউন্টে। এখন গ্রামের বাড়িতে যাবো। টাকা তুলতে এসে দেখি এই অবস্থা। কি করবো বুঝতে পারছি না।’

সেবা বন্ধ থাকার বিষয়ে ডাচ বাংলা ব্যাংকের জনসংযোগ কর্মকর্তা এইচএম সগীর আহমেদ বলেন, ‘ডাচ-বাংলা ব্যাংকের সিস্টেম আপগ্রেডের জন্য ১৪ মার্চ (বৃহস্পতিবার) রাত ১২টা থেকে আগামী ১৯ মার্চ (মঙ্গলবার) সকাল ৬টা পর্যন্ত শাখা, এটিএম বুথসহ পিওএস এবং এজেন্ট ব্যাংকিংয়ের সকল কার্যক্রম বন্ধ থাকবে। বিষয়টি আমরা জাতীয় পত্রিকায় বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে গ্রাহকদের জানিয়ে দিয়েছি।’

ছবি: সাজ্জাদ হোসেন

 

/এসএস/টিটি/

x