নর্দ্দা এলাকায় বাসচাপায় শিক্ষার্থী নিহত, সড়ক অবরোধ

বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট ১০:০৯ , মার্চ ১৯ , ২০১৯

আবরার আহমেদ চৌধুরী, ফেসবুক থেকে নেওয়ারাজধানীর নর্দ্দা এলাকায় বাসচাপায় বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালসের (বিইউপি) এক শিক্ষার্থী নিহত হয়েছেন। তার নাম আবরার আহমেদ চৌধুরী (২৪)।  এই ঘটনার প্রতিবাদে শিক্ষার্থীরা সড়ক অবরোধ করে রেখেছেন।

মঙ্গলবার (১৯ মার্চ) সকাল সাড়ে ৭টার দিকে যমুনা ফিউচার পার্কের সামনে সুপ্রভাত নামের একটি বাস আবরারকে চাপা দেয়। ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়।  গুলশান থানার ডিউটি অফিসার এসআই জাহিদ হাসান বাংলা ট্রিবিউনকে এ তথ্য জানিয়েছেন।

রক্তে ভেজা আবরারের পরিচয়পত্রতিনি বলেন, আবরারকে চাপা দেওয়া বাসের চালককে আটক করা হয়েছে। বাসটিও জব্দ করা হয়েছে। চালকের নাম সিরাজুল ইসলাম (২৯)।

বিইউপি শিক্ষার্থী ও আবরারের সহপাঠী নাফিস রায়হান বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন,  ‘সকালে সুপ্রভাতের বাসচাপায় আবরার গুরুতর আহত হয়। সিএমএইচে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। আবরারের সঙ্গে আমাদের আরও দু’জন সহপাঠী ছিল। তারা আমাদের জানালে আমরা সকালে নর্দায় যাই। এরপর আমাদের সঙ্গে অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরাও প্রতিবাদে অংশ নেয়।’

শিক্ষার্থীদের সড়ক অবরোধবিইউপি শিক্ষার্থী আল আমিন ছোটন জানান, বিইউপি'র ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষের (ফ্রেশারস্) আর্ন্তজাতিক সম্পর্ক বিভাগের ‘সেকশন এ’ এর শিক্ষার্থী ছিলেন আবরার। ভোরে যমুনা ফিউচার পার্কে রাস্তা পার হওয়ার সময় সুপ্রভাত সিটিং সার্ভিস এর একটি বাস তাকে চাপা দেয়। ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। এরপর তাকে সিএমএইচ-এ নিয়ে যাওয়া হয়। এরপর বিইউপির শিক্ষার্থীরা বসুন্ধরা গেটের সামনে নিরাপদ সড়কের দাবিতে রাস্তা অবরোধ করে মানববন্ধন শুরু করে।

শিক্ষার্থীদের সড়ক অবরোধদুর্ঘটনার পর যমুনা ফিউচার পার্কের সামনের রাস্তা অবরোধ করেন বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থী ও এলাকাবাসী। সকাল সাড়ে ৮টা থেকে তার সড়ক অবরোধ করে রেখেছেন। এতে রামপুরা সড়কে তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়।  ঘটনাস্থলে ছুটে যান পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। তারা গিয়ে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলেন।  তবে শেষ খবর পর্যন্ত তারা সড়ক অবরোধ করে রেখেছেন।

আবরার পরিবারের সঙ্গে বসুন্ধরা আবাসিক এলাকায় থাকতেন। তার বাবা ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) আরিফ হোসেন। দুই ভাইয়ের মধ্যে আবরার ছিল বড়।

আবরারের সহপাঠী আব্দুল কাদির খান বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন,  সকাল সাড়ে ৭ টায় ভার্সিটির বাস ধরার জন্য বাসা থেকে আবরারসহ তিনজন বের হয়েছিল। তারা যমুনা ফিউচার পার্কের সামনে দিয়ে রাস্তা পার হওয়ার সময় সুপ্রভাতের বাস আবরারকে চাপা দেয়।

তিনি আরও জানান, সিএমএইচে সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরির পর আবরারের লাশ বিইউপি ক্যাম্পাসে নেওয়া হবে। সেখানে জানাজার পর লাশ বসুন্ধরা আবাসিক এলাকায় নেওয়া হবে। সেখানে দ্বিতীয় জানাজা হবে। এরপর দাফন করা হবে।

 

/এআরআর/এসটি/

x