উগ্র জাতীয়তাবাদের কারণেই যুদ্ধ: গেটেলম্যান

বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট ২০:৪৬ , নভেম্বর ০৮ , ২০১৯



ঢাকা লিট ফেস্ট ২০১৯-এর দ্বিতীয় দিন শুক্রবার (৮ নভেম্বর) বিকালে বাংলা একাডেমির কসমিক টেন্টে ‘ওয়ার: হাউ ডু উই লাইক টু লিভ’ শীর্ষক সেশনে সাংবাদিক হিসেবে যুদ্ধের ভয়াবহতার বিষয়ে নিজের অভিজ্ঞতা তুলে ধরেন জেফরি গেটেলম্যান। তার সঙ্গে ছিলেন বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত আমেরিকান শিক্ষক ও লেখক নাদিম জামান, ব্রাজিলিয়ান ঔপন্যাসিক ও চিকিৎসক মারিয়া ফিলোনেমা এবং ব্রিটিশ সাংবাদিক জোসেফ আলচিন।

শুরুতেই জেফরি গেটেলম্যান বলেন, ‘উগ্র জাতীয়তাবাদই যুদ্ধের প্রধান কারণ।’ তিনি বলেন, ইরাক যুদ্ধ কাভার করতে গিয়েছিলেন সম্পূর্ণ পূর্ব অভিজ্ঞতা ছাড়া। তিনি বলেন, ‘বিমান দিয়ে ছোট ছোট গ্রামগুলো নিঃশেষ করে দেওয়ার দৃশ্য আমি মৃত্যুর আগ পর্যন্ত ভুলবো না।’
প্যারাগুয়ে ও ব্রাজিলের যুদ্ধ নিয়ে উপন্যাস ‘কুনহাতাই’ সম্পর্কে জানতে চাইলে মারিয়া ফিলোনেমার বলেন, ‘অতীত আমাদের অনেক কিছু শেখায়। আর এই উপন্যাসের জন্য আমি কয়েকজন সামরিক কর্মকর্তা, ইতিহাসবিদের সঙ্গে কথা বলি। লাইব্রেরির শরণাপন্ন হই।’
‘নাদিম জামান আপনি তো বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের ওপর বই লিখেছেন। এটি কীভাবে সম্পন্ন করলেন?’ জেফরি গ্যাটেলম্যানের এই প্রশ্নের জবাবে নাদিম জামান বলেন, ‘আমি আমার পরিবারের সদস্যদের কাছে ’৭১ সালের গল্প শুনি। তারপর নিজের আগ্রহ থেকেই মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে পড়াশোনা করি। আমি প্রত্যেক দিন রুটিনমাফিক এই কাজ করতাম। প্রায় ১০ বছর লেগেছে আমার বইয়ের কাজ শেষ করতে।’
সাংবাদিক হিসেবে জোসেফ আলচিন বাংলাদেশে এসেছিলেন। তিনি আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের বিচার ও জঙ্গিবাদ নিয়ে সারা বিশ্বের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছিলেন নিজের লেখার মাধ্যমে।
বাংলাদেশে কাজের অভিজ্ঞতা ও জঙ্গিবাদ নিয়ে নিজের অভিজ্ঞতা সম্পর্কে জোসেফ আলচিন বলেন, ‘২০১৬ সালে গুলশানের হলি আর্টিজানের সন্ত্রাসী হামলা সারা বিশ্বকে চমকে দিয়েছিল। ২০১৩ সালে রাজাকারদের ফাঁসির কার্যক্রম শুরু হওয়ায় যে উচ্ছ্বাস দেখা গিয়েছিল, গুলশানের এই সন্ত্রাসী হামলা সবকিছু ম্রিয়মাণ করে দেয়।’
যুদ্ধ, শান্তি ও জাতীয়তাবাদ নিয়ে জেফরি গেটেলম্যান বলেন, ‘মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের নির্যাতন করে অন্য দেশে শরণার্থী হিসেবে থাকতে বাধ্য করার নামে যা হচ্ছে তা হলো উগ্র জাতীয়তাবাদ।’ এই উগ্র জাতীয়তাবাদ পৃথিবীকে খণ্ডিত করেছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

/এইচআই/এমওএফ/

x