‘সঞ্চালককে হতে হবে স্পষ্টভাষী’

বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট ১৮:২৭ , নভেম্বর ০৯ , ২০১৯

ঢাকা লিট ফেস্টের নবম আসরের শেষ দিন (৯ নভেম্বর) বাংলা একাডেমির কবি শামসুর রাহমান মিলনায়তনে ‘দ্য আর্ট অব কনভারসেশন’ শীর্ষক এক আলোচনা অনুষ্ঠানে কথোপকথনের শিল্প বিষয়ে বক্তব্য রাখেন ঢাকা লিট ফেস্টের তিন পরিচালক সাদাফ সায্‌, আহসান আকবর ও কাজী আনিস আহমেদ।


আর্ট অব কনভারসেশন বা কথোপকথনের শিল্প বিষয়ে কাজী আনিস আহমেদ বলেন, ‘একটি অনুষ্ঠানের সার্থকতা অনেকাংশে নির্ভর করে এর সঞ্চালকের ওপর। দর্শক এবং অতিথিদের মধ্যে সমন্বয় সাধনের কাজটিও করেন সঞ্চালক। তাই সঞ্চালককে হতে হবে স্পষ্টভাষী, বিষয় সম্পর্কে থাকতে হবে পূর্ব-অভিজ্ঞতা এবং সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ যেটি তা হলো গবেষণা দক্ষতা। অর্থাৎ কোন অতিথিকে যেকোনও বিষয়ে প্রশ্ন করার আগে সঞ্চালককে অতিথি সম্পর্কে থাকতে হবে স্পষ্ট ধারণা।’

এ প্রসঙ্গে সাদাফ সায্‌ বলেন, ‘উত্তম সমন্বয়ের জন্যে একজন সঞ্চালককে পড়তে হবে প্রাসঙ্গিক বইপত্র। ভাগ করে নিতে হবে বিষয়। থাকতে হবে নিয়মতান্ত্রিক, কিন্তু অবশ্যই হতে হবে অনুসন্ধিৎসু। জানার আগ্রহ বা বিষয় সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য সংগ্রহের গুণাবলি একজন সঞ্চালককে করে তোলে অনেক বেশি দক্ষ। আলোচনার সময় সুনির্দিষ্ট বিষয়ে আলোকপাত আলোচনাকে করে তোলে প্রাঞ্জল ও উপভোগ্য।’
কথোপকথনের শিল্প নিয়ে আহসান আকবর মনে করেন, সবার আগে সঞ্চালককে হতে হবে একজন মনোযোগী শ্রোতা। অতিথি এবং দর্শক, শুনতে হবে উভয়েরই বক্তব্য। অনুষ্ঠান শুরুর আগে আমন্ত্রিত অতিথির সঙ্গে কিছুক্ষণ কথা বলে তার নমনীয়তার জায়গাগুলোও জেনে নিতে হবে।

সাদাফ মনে করেন, একজন সঞ্চালকই পারেন একটি অনুষ্ঠানকে সবচেয়ে বেশি উপভোগ্য করতে। যেকোনও কথোপকথনের মধ্যে মোবাইলসহ সব ধরনের ইলেকট্রিক ডিভাইস থেকে দূরে থাকার পরামর্শ দেন আহসান আকবর।
যেকোনও আন্তর্জাতিক অনুষ্ঠানে সঞ্চালক হিসেবে বাংলাদেশিদের অভাব স্মরণ করিয়ে দিয়ে দর্শক সারিতে একজনের পরামর্শের বিপরীতে কাজী আনিস আহমেদ ঢাকা লিট ফেস্টে বিভিন্ন সেশন সঞ্চালনায় আগ্রহী বাংলাদেশিদের ঢাকা ট্রিবিউন অথবা ঢাকা লিট ফেস্টের অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে সাহিত্য রিভিউ অথবা যেকোনও সাহিত্য সমালোচনামূলক লেখা আহ্বান করে অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘোষণা করেন।

/এনএ/এমওএফ/

x