যেসব কারণে প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করেনি বিএনপি

আদিত্য রিমন ০২:৩২ , ডিসেম্বর ০৭ , ২০১৮





একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপি মনোনীত চূড়ান্ত প্রার্থীদের আংশিক তালিকা গণমাধ্যমে ঘোষণা দেওয়ার কথা ছিল বৃহস্পতিবার (৬ ডিসেম্বর) রাত ৮টার পর। কিন্তু রাত সাড়ে ৮টায় দলটির পক্ষ থেকে জানানো হয়, প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করা হবে না। কেন প্রার্থী তালিকা ঘোষণা স্থগিত হলো, তা নিয়ে চলছে নানা জল্পনা-কল্পনা।

এ প্রেক্ষাপটে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্যসহ কয়েকজন নেতাদের সঙ্গে কথা হয় বাংলা ট্রিবিউনের। তারা জানান, বিএনপি তাদের দুই মিত্র—২০ দলীয় জোট ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট কাউকে নাখোশ করতে চায় না। জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট থেকে বিএনপিকে অনুরোধ করা হয় আংশিক প্রার্থী তালিকা ঘোষণা না করে একসঙ্গে যেন জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট ও বিএনপির চূড়ান্ত প্রার্থী তালিকা ঘোষণা দেওয়া হয়। এছাড়া এখনও জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সঙ্গে বিএনপির পূর্ণাঙ্গ আসন সমঝোতা হয়নি। কয়েকটি আসনের প্রার্থিতা ফিরে পাওয়ার আপিল শুনানিও বাকি আছে। এসব কারণে বিএনপির প্রার্থী তালিকা প্রকাশ স্থগিত করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার বিকাল সাড়ে ৪টায় বিএনপি চেয়ারপারসনের গুলশান কার্যালয়ে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, ‘আজ রাত ৮টার পর আংশিক তালিকা ঘোষণা করা হবে।’

তবে রাত সাড়ে ৮টায় বিএনপি চেয়ারপারসনের মিড়িয়া উইং সদস্য শায়রুল কবির খান দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খানের বরাত দিয়ে বলেন, ‘আজকে বিএনপির চূড়ান্ত প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করা হবে না। আগামীকাল শুক্রবার যেকোনও সময় ঘোষণা করা হতে পারে।’
বিএনপির একটি সূত্র জানায়, ২২০টি আসনে বিএনপির একক প্রার্থী চূড়ান্ত করে রাখা হয়েছে। বাকি ৮০টির মধ্যে থেকে ৭০টি আসনে ২০ দলীয় জোট ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্টকে ছাড় দেবে বিএনপি। বাকি ১০টি আসন বিএনপি হাতে রেখেছে। সেখানে যেকোনও দলের প্রার্থীই নির্বাচন করতে পারেন। তবে শরিকদের সর্বোচ্চ ছাড় দেওয়ার মানসিকতা রয়েছে বিএনপির।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিএনপির স্থায়ী কমিটির এক নেতা বলেন, শুক্রবার (৭ ডিসেম্বর) সকালে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের স্টিয়ারিং কমিটির মিটিং আছে। সেখানে বিএনপির সঙ্গে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের চূড়ান্ত আসন সমঝোতা হবে। একই সঙ্গে সকালে অনানুষ্ঠানিকভাবে ২০ দলীয় জোটের নেতাদের সঙ্গে মিটিং করতে পারে বিএনটি। এরপরই দুপুরে দিকে বিএনপি ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী তালিকা গণমাধ্যমে প্রকাশ করা হবে। ২০ দলীয় জোটের শরিকদের প্রার্থীদের তালিকা আলাদা সংবাদ সম্মেলনেও ঘোষণা করা হতে পারে।
জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের একটি সূত্র জানায়, বৃহস্পতিবার বিকাল সাড়ে ৫টায় জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের স্টিয়ারিং কমিটির মিটিংয়ে গণফোরাম নেতা সুব্রত চৌধুরী বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুলকে বলেন, বিএনপি তাদের ২০ দলীয় জোটের প্রার্থীদের তাদের মতো চিঠি দিতে পারবে। তবে যেসব জায়গায় জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট ও বিএনপির প্রার্থী আছে, সেখানে চূড়ান্তভাবে কোন প্রার্থী এককভাবে নির্বাচন করবে তা ঠিক করে একসঙ্গে সব প্রার্থীর নাম প্রকাশ করা হলে ভালো হবে। এতে মির্জা ফখরুল রাজি হন।
এছাড়া, যেসব আসনে বিএনপি ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে, সেখানে প্রার্থিতা ফিরে পাওয়ার নির্বাচন কমিশনে আপিল শুনানির পরে চূড়ান্ত করা হবে কোন দলের প্রার্থী নির্বাচন করবে। এসব আসনের প্রার্থীদের নাম পরে প্রকাশ করা হবে।
জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শরিক কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ইকবাল সিদ্দিকী বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘শুক্রবার বিএনপির সঙ্গে ঐক্যফ্রন্টের শরিকদের সকালে বৈঠক হতে পারে। এরপর বিকালে সংবাদ সম্মেলনে প্রার্থীদের নাম ঘোষণা করা হবে।’

/এইচআই/এমওএফ/

x