চার দিনের টেস্ট নিয়ে যা ভাবছে আইসিসি

স্পোর্টস ডেস্ক ১৯:০১ , অক্টোবর ১৩ , ২০১৭

চার দিনের টেস্ট নিয়ে যা ভাবছে আইসিসি

ভারতের ব্যস্ততায় এবার হচ্ছে না বক্সিং ডে টেস্ট।  কারণ শ্রীলঙ্কার সঙ্গে একই বছরে দুইবার সিরিজ! যে সিরিজ শেষ হবে ডিসেম্বরের ২৪ তারিখ।  তাই প্রোটিয়া মৌসুমের মূল পর্বই এবার ভেস্তে যাওয়ার পথে ছিল।  ঐতিহাসিক সেই সময়টা তো আর ফেলে রাখা যায় না। তাই জিম্বাবুয়েকে নিয়েই চারদিনের টেস্ট খেলতে আইসিসির অনুমোদনের অপেক্ষায় ছিল দক্ষিণ আফ্রিকা। যার আনুষ্ঠানিক অনুমোদন শুক্রবার দেওয়া হয়েছে অকল্যান্ডে অনুষ্ঠিত আইসিসির সভায়। যদিও এর বিরোধিতা করেছিল এমসিসি ও আইসিসির ক্রিকেট কমিটি। তবে পুরোপুরি না দিয়ে পরীক্ষামূলক ভিত্তিতেই এর প্রচলনের অনুমোদন দিয়েছে বিশ্ব ক্রিকেটের সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক এই সংস্থা।

পরীক্ষামূলক ভিত্তিতে আগামী ২০১৯ বিশ্বকাপ পর্যন্ত চলবে চারদিনের টেস্ট। যেখানে সবার অংশগ্রহণের ব্যাপারে জোর-জবরদস্তি করা হবে না। তবে টেস্ট র‌্যাংকিংয়ে নিচের সারিতে থাকা দলগুলো খেলবে চারদিনের টেস্ট। নিচের সারিতে এবার নতুন যুক্ত হয়েছে আয়ারল্যান্ড ও আফগানিস্তান। তবে প্রথম টেস্টটি খেলবে জিম্বাবুয়ে ও দক্ষিণ আফ্রিকা। এ ব্যাপারে আইসিসির প্রধান নির্বাহী ডেভ রিচার্ডসনের ব্যাখ্যা, ‘পরীক্ষামূলক ভিত্তিতে চালু হলেও সবার জন্য এটা বাধ্যতামূলক নয়। নির্দিষ্ট সিরিজে যারা চাইবে, তারাই খেলবে। আর আয়ারল্যান্ড, আফগানিস্তান ও জিম্বাবুয়ের মতো দেশগুলো টেস্টে সেরা অবস্থায় নেই। তারা চারদিনের টেস্ট খেলে সুযোগটা কাজে লাগাতে পারে।’

আইসিসি মনে করছে হারিয়ে যাওয়া জৌলুসও ফিরিয়ে আনবে চারদিনের টেস্ট। এ প্রসঙ্গে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার চেয়ারম্যানের ব্যাখ্যা বরং এর পক্ষেই, ‘সবাই ফলাফল চায়। আর সেটা চায় আরও ছোট ফরম্যাটে। আমার মনে হয় পরীক্ষামূলকভাবে চারদিনের টেস্ট খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কে জানে এটা সফল হলে হতেও পারে। আমরা সেটাই প্রত্যাশা করছি।’

আইসিসি পরীক্ষামূলক ভিত্তিতে করার পরেই পূর্ণাঙ্গ কাঠামো দাঁড় করাতে চাইছে। এর ক্রিকেট কমিটির কথা না শুনলেও চারদিনের টেস্ট নিয়ে বিধিমালা প্রণয়নে সেই কমিটির কাছেই হাত পেতে বসে আছে আইসিসি! যার প্রধান সাবেক ভারতীয় অধিনায়ক ও স্পিনার অনিল কুম্বলে।

Advertisement

Advertisement

Pran-RFL ad on bangla Tribune x