জাতীয় দল নিয়ে বাফুফের দীর্ঘ পরিকল্পনা

বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট ২০:৫১ , ফেব্রুয়ারি ১৩ , ২০১৮

সংবাদ সম্মেলনে দল নিয়ে বিভিন্ন পরিকল্পনার কথা জানিয়েছেন ফুটবল কর্মকর্তারা। ছবি-বাফুফেঅনেকদিন পর ব্যস্ত জাতীয় ফুটবল দল। আগামী সেপ্টেম্বরে ঢাকায় বসবে সাফ ফুটবলের দ্বাদশ আসর। দক্ষিণ এশিয়ার সেরা টুর্নামেন্টে ভালো করার লক্ষ্যে দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা নিয়েছে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন (বাফুফে)। বুধবার বিকেএসপিতে শুরু হবে আবাসিক ক্যাম্প। কাতার আর থাইল্যান্ডেও ক্যাম্প হওয়ার কথা। দীর্ঘ ক্যাম্পের ফাঁকে বেশ কয়েকটি ম্যাচ খেলতে পারে লাল-সবুজের দল। লক্ষ্য একটাই—ঘরের মাঠে সাফ ফুটবলে সাফল্য।

মঙ্গলবার বাফুফে ভবনে এক সংবাদ সম্মেলনে দল নিয়ে বিভিন্ন পরিকল্পনার কথা জানিয়েছেন ফুটবল কর্মকর্তারা। জাতীয় টিমস কমিটির চেয়ারম্যান ও বাফুফে সহ-সভাপতি কাজী নাবিল আহমেদ বলেছেন, ‘বহু প্রতীক্ষিত প্রোগ্রাম নিয়ে আমরা হাজির হয়েছি। এই বছরের সাফ ফুটবলকে কেন্দ্র করে আমাদের কার্যক্রম শুরু হতে যাচ্ছে। আশা নিয়ে আর আনন্দের সঙ্গে কার্যক্রম শুরু করতে যাচ্ছি আমরা। ক্যাম্পে ডাক পাওয়া ফুটবলাররা আজ (মঙ্গলবার) সন্ধ্যায় চলে যাচ্ছে বিকেএসপিতে।’

আবাসিক ক্যাম্প আর প্রীতি ম্যাচ নিয়ে তার কথা, ‘শুরুতে বিকেএসপিতে ক্যাম্প হবে। ২৮ ফেব্রুয়ারি কাতারে যাবে জাতীয় দল, আর সেখানেই হবে ক্যাম্প। কাতার থেকে দল ঢাকায় ফিরবে ১৪ মার্চ। দুই-তিন দিন ছুটির পর ঢাকায় দুই দিনের ক্যাম্প হবে। ১৯ মার্চ থাইল্যান্ডে যাবে জাতীয় দল। সেখানে ক্যাম্প চলার পাশাপাশি ২১ ও ২৩ মার্চ দুটি প্রীতি ম্যাচ খেলবো আমরা। ২৫ মার্চ দল যাবে লাওসে। ২৭ মার্চ ফিফা আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলে ২৮ মার্চ দেশে ফিরবে দল। সেপ্টেম্বর পর্যন্ত আমাদের কার্যক্রম চলবে।’

অতীতের ব্যর্থতাকে পেছনে ফেলে এ বছর সাফল্যের প্রত্যাশা কাজী নাবিলের কণ্ঠে,  ‘আমাদের প্রতিভাবান খেলোয়াড়রা ঘরোয়া ফুটবলে তাদের খেলা উপস্থাপনা করতে পেরেছে, মাঠে নিজস্ব খেলা তুলে ধরতে পেরেছে। আমরা সবার সহযোগিতা চাই। আমরা সবাই মিলে পেশাদারিত্বের সঙ্গে, সুচিন্তিতভাবে, সব কিছু বিবেচনা করে এই পরিকল্পনা করেছি। এশিয়ান গেমস আর সাফ ফুটবলে ভালো খেলাই আমাদের লক্ষ্য।’

বাফুফে সভাপতি কাজী সালাউদ্দিন নিজেদের পরিকল্পনা নিয়ে সন্তুষ্ট। তিনি বলেছেন, ‘ফেডারেশনের কাজ সব কিছু গুছিয়ে দেওয়া, খেলোয়াড়দের অনুশীলন ও ম্যাচ খেলার সুযোগ করে দেওয়া। বাকি কাজ করতে হবে কোচ-খেলোয়াড়দের। আমরা তো মাঠে নেমে খেলে দিতে পারবো না! কাতারে বিশ্বের অন্যতম সেরা প্রস্তুতির সুবিধা পাওয়া যাবে। এখন ভালো খেলার দায়িত্ব খেলোয়াড়দের।’

গত বছরের জুনে বাংলাদেশের প্রধান কোচের দায়িত্ব পেয়েছিলেন অ্যান্ড্রু ওর্ড। এত দিন পর জাতীয় দল নিয়ে কাজ করার সুযোগ পেয়েছেন তিনি। সবাইকে ধৈর্য ধরার আহ্বান জানিয়ে অস্ট্রেলীয় কোচ বলেছেন, ‘আমি কোনও প্রতিশ্রুতি দিচ্ছি না। আমরা এক ম্যাচ দিয়ে বাজে অবস্থা থেকে ভালো অবস্থায় চলে আসতে পারবো না। আমাদের বাস্তববাদী হতে হবে। আমাদের আরও ধৈর্য ধরতে হবে, ৯০ মিনিট খেলার জন্য তৈরি হতে হবে।’ 

/টিএ/এএআর/

x