৫ দশকের আক্ষেপ ঘুচালো নিউজিল্যান্ড

স্পোর্টস ডেস্ক ২০:৩২ , ডিসেম্বর ০৭ , ২০১৮

নিউজিল্যান্ডের সিরিজ জয়ের আনন্দকেন উইলিয়ামসন ও হেনরি নিকোলসের অসাধারণ সেঞ্চুরির পর জ্বলে উঠলেন নিউজিল্যান্ড বোলাররা। দিশেহারা পাকিস্তানের তরী তীরে আর ভিড়তে পারলো না। দাপুটে পারফরম্যান্সে আবুধাবি টেস্ট ১২৩ রানে জিতে নিয়েছে কিউইরা। তাতে প্রায় ৫ দশকের আক্ষেপ ‍ঘুচেছে সফরকারীদের। তিন ম্যাচের সিরিজ ২-১ ব্যবধানে জিতে ৪৯ বছর পর বিদেশে পাকিস্তানের বিপক্ষে টেস্ট সিরিজ জয়ের স্বাদ পেল নিউজিল্যান্ড।

উইলিয়ামসনের ১৩৯ ও নিকোলসের হার না মানা ১২৬ রানে ভর করে ৭ উইকেটে ৩৫৩ রানে দ্বিতীয় ইনিংস ঘোষণা করে কিউইরা। জয়ের জন্য ২৮০ রানের লক্ষ্য পাওয়া পাকিস্তান কোনও প্রতিরোধই গড়তে পারেনি, অলআউট হয়েছে মাত্র ১৫৬ রানে। যাতে ‘দ্বিতীয় ঘর’ সংযুক্ত আরব আমিরাতে একটু একটু করে পতনের সুর বাজতে শুরু করেছে তাদের। প্রায় ১০ বছর ধরে মধ্যপ্রাচ্যের দেশে আধিপত্য বিস্তার করা পাকিস্তান সবশেষ তিন টেস্ট সিরিজেই দুটিতেই হারলো!

আরব আমিরাতের স্পিন-সহায়ক পিচে পাকিস্তানের স্পিন আক্রমণের বিপক্ষে কিভাবে খেলতে হয়, দেখিয়ে দিয়েছেন কিউই ব্যাটসম্যানরা। যে তালিকায় সবার ওপরে অধিনায়ক উইলিয়ামসন। প্রথম ইনিংসে ৮৯ করা এই ব্যাটসম্যান দ্বিতীয় ইনিংস খেলেন ১৩৯ রানের চমৎকার এক ইনিংস। তার সঙ্গে ধৈর্যের পরীক্ষা দিয়ে ১২৬ রানে অপরাজিত থাকেন নিকোলস।

আগের দিনের ৪ উইকেটে ২৭২ রান নিয়ে পঞ্চম শুরু করা নিউজিল্যান্ড ৯ ওভার ব্যাটিং করে দ্বিতীয় ইনিংস ঘোষণা করে। হাসান আলীর বলে প্রথম ওভারেই ফিরে যান উইলিয়ামসন। তার আউটের পর টেস্ট ক্যারিয়ারের তৃতীয় সেঞ্চুরি পূরণ করেন নিকোলস। তিনি ২৬৬ বলে অপরাজিত থাকেন ১২৬ রানে। এছাড়া কলিন গ্র্যান্ডহোম (২৬) ও টিম সাউদির (১৫*) ঝড়ো ব্যাটিংয়ে ৭ উইকেটে ৩৫৩ রানে ইনিংস ঘোষণা করে কিউইরা।

২৮০ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে লাঞ্চের আগেই ৫৫ রানে ৫ উইকেট হারিয়ে বসে পাকিস্তান। টপ অর্ডার ধসিয়ে দিয়ে জয়ের স্বপ্ন দেখতে থাকে সফরকারীরা। টেস্ট ক্যারিয়ারের শেষ ইনিংস খেলতে নামা মোহাম্মদ হাফিজ পুরোপুরি ব্যর্থ। প্রথম ব্যাটসম্যান হিসেবে তিনি আউট ৮ রানে। তার পথে হেঁটেছেন আগের ইনিংসের দুই সেঞ্চুরিয়ান আজহার আলী ও আসাদ শফিক। আজহার ৫ রান করলেও শফিক রানের খাতাই খুলতে পারেননি।

ব্যর্থ হয়েছেন হারিস সোহেলও (৯)। অন্যপ্রান্তে দাঁড়িয়ে সতীর্থদের আসা-যাওয়া দেখা ইমাম-উল-হক চেষ্টা করেও এগোতে পারেননি, ২২ রানে ফিরে যান প্যাভিলিয়নে। লাঞ্চের আগেই এলোমেলো পাকিস্তান দ্বিতীয় সেশনে কিছুটা হলেও আশা জাগিয়েছিল বাবর আজম ও সরফরাজ আহমেদের ব্যাটে। কিন্তু ২৮ রান করে সরফরাজ ফিরে যাওয়ার পর শেষ আশাটাও শেষ হয়ে যায় তাদের। বাবরের ৫১ রানের ইনিংসটা কেবল হারের ব্যবধানই কমিয়েছে পাকিস্তানের।

কিউইদের দুর্দান্ত জয়ের পথে বল হাতে আলো ছড়িয়েছেন দুই স্পিনার উইলিয়াম সমারভিল ও এজাজ প্যাটেল। স্পিন-সহায়ক পিচে কম যাননি পেসার টিম সাউদিও। তিনজনই পেয়েছেন ৩টি করে উইকেট। যদিও দুটো অসাধারণ ইনিংস খেলে ম্যাচসেরার পুরস্কার জিতে নিয়েছেন কিউই অধিনায়ক উইলিয়ামসন। দল হারলেও তিন ম্যাচে ২৯ উইকেট নিয়ে সিরিজসেরা পাকিস্তানের লেগস্পিনার ইয়াসির শাহ।

৪৯ বছর পর দেশের বাইরে পাকিস্তানের বিপক্ষে সিরিজ জয়ের আনন্দে মাতোয়ারা উইলিয়ামসন। ম্যাচ শেষে তিনি বলেছেন, ‘৪৯ বছরের অপেক্ষা দীর্ঘ। পাকিস্তানকে তাদেরই চেনা জায়গায় হারানো খুব কঠিন। সত্যিই দুর্দান্ত ব্যাপার এটা। এই মুহূর্তটা ছেলেরা অনেকদিন মনে রাখবে।’ ক্রিকইনফো

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

নিউজিল্যান্ড: ২৭৪ ও ১১৩ ওভারে ৩৫৩/৭ (ডিক্লে.) (উইলিয়ামসন ১৩৯, নিকোলস ১২৬*, গ্র্যান্ডহোম ২৬, টেলর ২২, সাউদি ১৫*; ইয়াসির ৪/১২৯, হাসান ২/৮৫)।

পাকিস্তান: ৩৪৮ ও ৫৬.১ ওভারে ১৫৬ (বাবর ৫১, সরফরাজ ২৮, ইমাম ২২, বিলাল ১২; সাউদি ৩/৪২, এজাজ ৩/৪২, সমারভিল ৩/৫২)।

ফল: নিউজিল্যান্ড ১২৩ রানে জয়ী।

সিরিজ: ৩ ম্যাচের সিরিজ নিউজিল্যান্ড ২-১ ব্যবধানে জয়ী।

ম্যাচসেরা: কেন উইলিয়ামসন।

সিরিজসেরা: ইয়াসির শাহ।

/কেআর/

x