রহমতগঞ্জের কাছে মোহামেডানের হার

বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট ১৯:৫৭ , এপ্রিল ১৯ , ২০১৯

মোহামেডানকে হারিয়ে রহমতগঞ্জের উল্লাসদুর্দশা কাটছেই না মোহামেডানের। ঢাকার ফুটবলের এক সময়ের পরাক্রমশালী দলটি এবার ২-১ গোলে হার মেনেছে রহমতগঞ্জের কাছে।

প্রিমিয়ার লিগের প্রথম পর্বে এটাই ছিল মোহামেডানের শেষ ম্যাচ। ১২ ম্যাচে ৬ পয়েন্ট নিয়ে একাদশ স্থানে ঐতিহ্যবাহী দলটি। সমান ম্যাচে ১২ পয়েন্ট সংগ্রহ করা রহমতগঞ্জ আছে নবম স্থানে।

শুক্রবার বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে চতুর্থ মিনিটে এগিয়ে যায় রহমতগঞ্জ। কঙ্গোর ফরোয়ার্ড সিও জুনাপিওর পাস থেকে লক্ষ্যভেদ করেন মিডফিল্ডার ফয়সাল আহমেদ। তবে ৭ মিনিট পরই সমতা নিয়ে আসে মোহামেডান। নাইজেরিয়ান ফরোয়ার্ড কিংসলে চিগোজির হেড থেকে হাবিবুর রহমান সোহাগের জোরালো ভলি চলে যায় জালে।

প্রথমার্ধে আর গোল হয়নি। ৫৬ মিনিটে এগিয়ে যাওয়ার সুবর্ণ সুযোগ পেয়েছিল মোহামেডান। কিন্তু পেনাল্টি থেকে কিংসলের শট ক্রসবারের ওপর দিয়ে গিয়ে হতাশ করে সাদা-কালো শিবিরকে।

৬২ ও ৬৩ মিনিটে মিডফিল্ডার শেখ গালিব নেওয়াজ এবং ফরোয়ার্ড আমীর হাকিম বাপ্পীর ব্যর্থতায় গোলের দেখা পায়নি মোহামেডান। ৭১ মিনিটে তো চরম দুর্ভাগ্য, মিডফিল্ডার কায়সার আলী রাব্বীর শট বাধা পেয়েছে ক্রসবারে।

চার মিনিট পর খেলার ধারার বিপরীতে এগিয়ে যায় রহমতগঞ্জ। পাল্টা আক্রমণ থেকে মিডফিল্ডার সোহেল রানার ক্রসে হেড করে গোল করেন জুনাপিও। গোলটা ধরে রেখে তিন পয়েন্টের উচ্ছ্বাস নিয়ে মাঠ ছাড়ে পুরোনো ঢাকার দলটি।

খেলা শেষে রহমতগঞ্জের কোচ সৈয়দ গোলাম জিলানি বলেছেন, ‘আমরা তিন পয়েন্টের লক্ষ্য নিয়ে মাঠে নেমেছিলাম। লক্ষ্যপূরণ হওয়ায় খুব ভালো লাগছে। ম্যাচ জিততে ভাগ্যও লাগে। আজ ভাগ্য আমাদের পক্ষে ছিল।’

অন্যদিকে মোহামেডানের অস্ট্রেলিয়ান কোচ শন লেন বলেছেন, ‘আমাদের দল পেনাল্টি মিস করেছে, কয়েকটা চমৎকার সুযোগ পেলেও কাজে লাগাতে পারেনি। এভাবে তো জেতা যায় না। আশা করি, দ্বিতীয় পর্বে আমাদের দল ঘুরে দাঁড়াতে পারবে।’

গোপালগঞ্জের শেখ ফজলুল হক মনি স্টেডিয়ামে দিনের অন্য ম্যাচে সাইফ স্পোর্টিং ক্লাব ২-০ গোলে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ক্রীড়া চক্রকে হারিয়েছে। ৪৮ মিনিটে রুশ ফরোয়ার্ড দেনিশ বোলশাকোভ এবং ৫২ মিনিটে মিডফিল্ডার রহিমউদ্দিন করেছেন গোল দুটি।

১২ ম্যাচে ২৩ পয়েন্ট নিয়ে সাইফ স্পোর্টিং চতুর্থ এবং সমান ম্যাচে ১৫ পয়েন্ট নিয়ে  মুক্তিযোদ্ধার অবস্থান ষষ্ঠ।

/টিএ/এএআর/

x