কেন আমি আন্দোলনে নেই, এই প্রশ্ন আমারও: মাশরাফি

বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট ০১:১৩ , অক্টোবর ২২ , ২০১৯

জাতীয় দলের সঙ্গে প্রথম শ্রেণি খেলা প্রায় সব ক্রিকেটারই ছিলেন ১১ দফা দাবির আন্দোলনে। অথচ বাংলাদেশের ক্রিকেটের আলোচিত এই অধ্যায়ে দেখা যায়নি মাশরাফি বিন মুর্তজাকে। স্বাভাবিকভাবেই প্রশ্ন উঠেছে­, কেন নেই বাংলাদেশের ওয়ানডে অধিনায়ক? সোমবার দিন গড়িয়ে রাত হওয়ার পরও নীরব ছিলেন মাশরাফি। অবশেষে মধ্যরাতে এসে মুখ খুলেছেন তিনি।

সোমবার রাত সাড়ে ১১টার পর নিজের ফেসবুক পেজে ধর্মঘটে না থাকতে পারার কারণ ব্যাখ্যায় আক্ষেপও ঝরেছে মাশরাফির মুখে। ফেসবুক পোস্টের শুরুটা করেছেন মাশরাফি এভাবে, ‘অনেকেই প্রশ্ন করছেন যে, দেশের ক্রিকেটের এমন একটি দিনে আমি কেন উপস্থিত ছিলাম না। আমার মনে হয়, প্রশ্নটি আমাকে না করে, ওদেরকে (ক্রিকেটারদের) করাই শ্রেয়। এই উদ্যোগ সম্পর্কে আমি একদমই অবগত ছিলাম না। নিশ্চয় বেশ কিছু দিন ধরেই এটি নিয়ে ওদের আলোচনা ছিল, প্রক্রিয়া চলছিল। কিন্তু এ সম্পর্কে আমার কোনও ধারণাই ছিল না। সংবাদ সম্মেলন দেখে আমি ওদের পদক্ষেপ সম্পর্কে জানতে পেরেছি।’

নড়াইল-২ আসনের সংসদ সদস্যের হতাশাও বেরিয়ে এলো পরের কথায়, ‘ক্রিকেটারদের নানা দাবির সঙ্গে আমি আগেও একাত্ম ছিলাম, এখনও আছি। আজকের (সোমবার) পদক্ষেপ সম্পর্কে আগে থেকে জানতে পারলে অবশ্যই আমি থাকতাম। মিডিয়ায় ওদের খবর দেখার পর থেকে হাজারবার আমার মাথায় এই প্রশ্ন এসেছে, কেন আমাকে জানানো হলো না। অনেকে আমার কাছে জানতেও চেয়েছেন। কিন্তু আমি নিজেও জানি না, কেন জানানো হয়নি।’

মাশরাফির ফেসবুক পোস্টদীর্ঘদিন ধরে টেস্ট ক্রিকেটের বাইরে থাকা মাশরাফি টি-টোয়েন্টি থেকে অবসর নিয়েছেন। ওয়ানডে থেকে আনুষ্ঠানিক অবসরের ঘোষণা এখনও আসেনি। তবে সামনে বছরের মে মাসের আগে ৫০ ওভারের ফরম্যাটে আর কোনও ম্যাচ না থাকায় তিনি বাংলাদেশের ক্রিকেটের বাইরেই বলা চলে।

এরপরও ক্রিকেটারদের ধর্মঘটের বিষয়টি জানতে না পারার হতাশা আছে তার। তবে আন্দোলনে থাকতে না পারলেও ক্রিকেটারদের দাবির সঙ্গে একাত্মতা ঘোষণা করেছেন ঠিকই, ‘আমার উপস্থিত থাকা কিংবা না থাকার চেয়ে ১১ দফা দাবি বাস্তবায়িত হওয়াই বড় কথা। সবকটি দাবিই ন্যায্য, ক্রিকেট ও ক্রিকেটারদের মঙ্গলের জন্য জরুরি। আমি মাশরাফি বিন মুর্তজা, ১১ দফা দাবি শান্তিপূর্ণভাবে বাস্তবায়িত হওয়ার পক্ষে আছি, থাকব।’

/আরআই/কেআর/এমএমজে/

x