প্রযুক্তিপ্রেমীদের শিহরিত করে ফিরে গেলো সোফিয়া

বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট ১৪:৫২ , ডিসেম্বর ০৭ , ২০১৭

ঢাকার মঞ্চে রোবট সোফিয়া (ছবি: সাজ্জাদ হোসেন)‘এলাম, দেখলাম, জয় করলাম’ কথাটি আবারও মনে করিয়ে দিলো বিশ্বের প্রথম সোশ্যাল রোবট সোফিয়া। প্রযুক্তিপ্রেমীদের ভালোবাসা আর বাংলাদেশকে জয় করে ফিরে গেলো এই রোবট। চলে গেলেও রয়ে গেছে তার রেশ। ৩৬ ঘণ্টার কিছু বেশি সময় বাংলাদেশে অবস্থানকালে দুটি অনুষ্ঠানে অংশ নেয় সে।
গত দুই দিন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক হয়ে উঠেছিল সোফিয়াময়। তার সঙ্গে অনেকে যেমন ছবি ও বিভিন্ন নিউজ শেয়ার করেছেন, তেমনই তাকে দেখতে না পারার হতাশাও ব্যক্ত করেছেন অনেকে। আবার কেউ কেউ এই রোবটকে নিয়ে মজাও করেছেন। বৃহস্পতিবারও (৭ ডিসেম্বর) ফেসবুকে তাকে নিয়ে চলছে আলোচনা।
ঢাকার আগারগাঁওস্থ বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে (বিআইসিসি) অনুষ্ঠিত ডিজিটাল ওয়ার্ল্ডের চমক হিসেবে আনা হয় সোফিয়াকে। তাকে একনজর দেখতে এখানে ছিল প্রযুক্তিপ্রেমীদের উপচেপড়া ভিড়। কেউ কেউ রোবটটিকে দেখতে পেলেও বেশিরভাগই ব্যর্থ হয়েছে অতিরিক্ত ভিড়ের কারণে। বিআইসিসি’র হল অব ফেমে যত মানুষ তাকে দেখেছেন, তার চেয়ে কয়েকগুণ বেশি মানুষ অপেক্ষায় ছিলেন বাইরে। আর রাস্তায় ছিল অগুনতি মানুষের দীর্ঘ সারি।গত ৫ ডিসেম্বর দুপুরে থাই এয়ারওয়েজের একটি ফ্লাইটে হংকং থেকে ঢাকায় এসে পৌঁছায় সোফিয়া। ওইদিন রাতে রাজধানীর আগারগাঁওস্থ বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে মহড়ায় অংশ নেয় সে। পরদিন (বুধবার) অনুষ্ঠানে এই রোবট কী করবে, মঞ্চে কিভাবে থাকবে, প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কী কথা বলবে— মহড়ায় এসব ভালোভাবে পর্যবেক্ষণ করেন আয়োজকরা।

ঢাকার মঞ্চে রোবট সোফিয়া (ছবি: সাজ্জাদ হোসেন)ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড উপলক্ষে সোফিয়াকে দেশে আনে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) বিভাগ। বুধবার (৬ ডিসেম্বর) এ আয়োজনে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে আলাপচারিতায় অংশ নেয় সে। উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শেষে হয়েছে ‘টেকটক উইথ সোফিয়া’ নামের একটি অনুষ্ঠান। এতে আইসিটি বিভাগের প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক ও উপস্থাপক গাওসুল আলম শাওনের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দেয় রোবটটি। প্রতিমন্ত্রী সোফিয়াকে ডিজিটাল বাংলাদেশ ও ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড বিষয়ে কিছু প্রশ্ন করেন। এ সময় মন্ত্রী সম্পর্কে কিছু তথ্য জানিয়ে তাকে চমকে দেয় এই রোবট।

বুধবার বিকালে সোফিয়াকে নেওয়া হয় রাজধানীর আগারগাঁওয়ের আইসিটি টাওয়ারে। সেখানে বিভিন্ন গণমাধ্যমের কর্মীর সঙ্গে সময় কাটায় সে। পরে রাতে রোবটটি ফিরে যায় হংকংয়ে। আইসিটি বিভাগের একজন দায়িত্বশীল কর্মকর্তা বাংলা ট্রিবিউনকে জানান, বুধবার রাত ১টায় থাই এয়ারওয়েজের একটি ফ্লাইটে হংকংয়ের উদ্দেশে রওনা দেয় সোফিয়া। সঙ্গে ছিলেন তার নির্মাতা ডেভিড হ্যানসন ও রোবটের একজন গাইড।

ঢাকার মঞ্চে রোবট সোফিয়া (ছবি: সাজ্জাদ হোসেন)সোফিয়া প্রসঙ্গে বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেসের (বেসিস) সভাপতি মোস্তাফা জব্বার বলেন, ‘বাংলাদেশ রোবট তৈরির সম্ভাবনা বেশ উজ্জ্বল বলে মনে হচ্ছে। সোফিয়ার আগমন এ দেশের রোবট নির্মাতাদের মানবিক রোবট তৈরিতে আরও উৎসাহী করবে।’

সোফিয়াকে দেখে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেছেন বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব কল সেন্টার অ্যান্ড আউটসোর্সিংয়ের (বাক্য) সাধারণ সম্পাদক তৌহিদ হোসেন। তিনি এই রোবটকে প্রশ্ন করারও সুযোগ পেয়েছিলেন বলে জানান। তার কথায়, ‘এটা একটা অসাধারণ অনুভূতি। একেবারে মানুষের মতো সে। প্রশ্ন করলে সাড়া দেয়। তার মুখের অভিব্যক্তিও বোঝা যায়।’

ঢাকার মঞ্চে রোবট সোফিয়া (ছবি: সাজ্জাদ হোসেন)তাকানো, কথা বলা আর হাসতে সক্ষম হলেও হাঁটতে পারে না সোফিয়া। কারণ তার পা ছিল না। নির্মাতা সূত্রে জানা যায়, শিগগিরই এই রোবটের পা সংযোজনের কাজ শুরু হবে। এটা বাস্তবায়ন হলে সোফিয়া এক জায়গায় দাঁড়িয়ে না থেকে হেঁটে হেঁটে অন্যদের সঙ্গে কথা বলতে ও যুতসই অনুভূতি ব্যক্ত করতে পারবে।

/এইচএএইচ/জেএইচ/

x